মেইন ম্যেনু

সততার এক বিরল নজির, যেখানে ৬৫ বছরে একবারও চুরি হয়নি!

চুরি হয় না এমন জায়গা খোঁজে পাওয়া ভার। এমন এলাকা আছে যেখানে ছোটখাটো থেকে বড় ধরনের চুরি হয়ে থাকে। যার যায় চুরি তার মাথায় হাত।

তবে না, চুরি যাওয়া জিনিসের জন্য নয়, চিন্তাটা অন্য জায়গায়। তাহলে কি সেই বিষয়? নিশ্চয়ই ভাবছেন, চারিদিকে তো আরো কত কী হচ্ছে। চুরি নিয়ে আবার এত চিন্তা কীসের? যেখানের কথা বলছি সেখানে গত ৬৫ বছরে কোনো চুরির ঘটনা ঘটেনি।

স্কটল্যান্ডের ছোট্ট দ্বীপ ক্যানা। জনসংখ্যা সাকুল্যে ২৬ জন। সেখানে কোনো পুলিশ স্টেশন নেই, নেই কোনো পুলিশকর্মী। সেখানে এসবের দরকারই নেই। কারণ সেখানে নেই কোনো অপরাধও। এমনই একটি জায়গায় সবার জন্য রয়েছে মাত্র একটি দোকান। ক্যানা কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্টের অধীনে দোকানটি চালান কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক।

দোকানটি খোলে মাঝরাতে। নাবিক ও জেলেরা যাতে একটু চা-কফি খেতে পারেন, কিছু প্রয়োজন হলে কিনতে পারেন, সেজন্যই রাতে খোলা হয় দোকানটি।

জিনিস কেনার পর ক্রেতারা টাকা ফেলে দেন ‘সততার বাক্স’-এ। চুরির কথা এখানে কেউ ভাবতেই পারেন না।

এই দ্বীপে শেষবার চুরি হয়েছিল ১৯৬০ সালে। রু চার্চ থেকে চুরি গিয়েছিল একটি কাঠের প্লেট। আর কোনোদিন খুঁজেও পাওয়া যায়নি। ম্যাকবে নামে এক মহিলা, যিনি দোকানটি চালান।

তিনি বলছেন, কোনো টাকা চুরি যায়নি, শুধু ২০০ পাউন্ডের জিনিসটা খোয়া গেছে। কিন্তু আমি এটা ভাবতেই পারছি না, আমাদের সম্প্রদায়ের মধ্যেই এমন কেউ আছেন, যিনি চুরিটা করেছেন।

চুরির পর অনেকে দোকানে সিসিটিভি লাগানোর পরামর্শও দিলেন কিন্তু দোকান মালিকের তাতে সম্মতি নেই। আমরা সিসিটিভি লাগাতে চাই না। কারণ সেটা করলে সততার ওপর বিরোধিতা করা হবে।

এ ধরনের ছোট্ট দ্বীপে কেউ বাস করলে, তাকে তার প্রতিবেশীকে, তার চারপাশের মানুষদের বিশ্বাস করতে হবে। তাতেই কেবল বসবাস সম্ভব।