মেইন ম্যেনু

সন্তানকে যা বললে ভুল করবে এসএসসি পরীক্ষায়

দেশব্যাপী চলছে এসএসসি পরীক্ষা। পরীক্ষায় সন্তানরা যাতে কাঙ্ক্ষিত ফল অর্জন করতে পারে সেজন্য দুশ্চিন্তায় থাকেন বাবা-মায়েরা। সেই দুশ্চিন্তার ভার গিয়ে পড়ছে সন্তানদের ওপর। তবে পরীক্ষা চলাকালীন ভুল করেও যা বললেন না সন্তানকে, তাই জেনে নিন আজ।

পরীক্ষা চলাকালে অনেক বাবা-মা সন্তানদের পড়াশোনার জন্য অতিরিক্ত চাপ দিয়ে থাকেন। ভালো রেজাল্ট করতে তারা সন্তানকে এ কথা ও কথা বলে থাকেন। এতে ভালো করার চেয়ে পরীক্ষায় খারাপই হতে পারে।

পরীক্ষা চলাকালে সন্তানদের ওপর এসব চাপ মোটেও সুখকর নয়। এসব চাপ থেকেই হয়তো পরীক্ষায় ভুল করে আসতে পারে আপনার সন্তান। তবে এ নিয়ে ঘাবড়ানোরও কিছু নেই। পরীক্ষা চলাকালে সন্তানকে কোনো অবস্থাতেই চাপ দেয়া ঠিক নয়। কীভাবে পরীক্ষার্থীরা চাপমুক্ত থাকবে তার
উপায় বাতলে দিয়েছে ভারতের শীর্ষস্থানীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া।
প্রতিবেদনটিতে ৮টি উপায়ের কথা বলা হয়েছে। জেনে নিন, সেই ৮ উপায়-

১. শান্ত থাকুন : আপনার সন্তান যা প্রস্তুতি নেয়ার নিয়ে ফেলেছে। সে ভালো না খারাপ করবে তা নির্ভর করবে প্রশ্নপত্রের ওপর। অতএব মোটেই দুশ্চিন্তা করবেন না। দুশ্চিন্তা হলেও তা সন্তানের সামনে প্রকাশ করবেন না। সবসময় সন্তানকে সাহস দেন। অন্যথায় পরীক্ষা নিয়ে আপনারা দুশ্চিন্তা করলে তার পড়াশোনায় ব্যাঘাত ঘটতে পারে। তাদের মাঝেও নার্ভাসনেস কাজ করতে পারে। আত্মবিশ্বাস হারিয়ে ফেলতে পারে।

২. নিজের সঙ্গে তুলনা করবেন না : সন্তানদের পরীক্ষা চলাকালে তাদের পড়াশোনা দেখে বলবেন না আমি তোমাদের চেয়ে বেশি পড়তাম বা সুযোগ থাকলে তোমাদের চেয়ে বেশি পড়ে দেখিয়ে দিতাম। এসব কথাবার্তা না বলে বরং তাদের শান্ত মেজাজে রিভিশন দেয়ার সুযোগ করে দিন। পারলে তাদের মাথায় হাত বুলিয়ে পাশে বসে থাকুন। সন্তানদের প্রফুল্ল রাখুন।

৩. শিক্ষা পদ্ধতি মেনে নিন : এমনও হতে পারে অনেক বাবা-মা’র কাছে প্রচলিত শিক্ষা পদ্ধতি ভালো নাও লাগতে পারে। এরপরও মেনে নিতে হবে। সন্তানকে বোঝাতে হবে বিশ্ব আপডেট হচ্ছে তোমাকেও এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। সবসময় ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে কথা বলুন। দেখবেন তারাও মানসিকভাবে হালকা থাকছে।

৪. সন্তানের ধারণ ক্ষমতা জানুন : মনে রাখবেন সব শিশুর ধারণ ক্ষমতা এক নয়। কেউ আধা ঘণ্টা পড়ে যা আয়ত্ত করতে পারে, অনেকেই এক ঘণ্টা পড়েও তা আয়ত্ত করতে পারে না। তাই সন্তানের লোড নেয়ার ক্ষমতা সম্পর্কে জানুন। সে অনুযায়ী তাদের সঙ্গে ব্যবহার করুন। এটা পারছো না, ওটা পারছো না, তো পরীক্ষায় লিখবা কি? এসব কথাবার্তা পরিহার করুন। তাদের প্রতি সদয় হওয়ার চেষ্টা করুন।

৫. কারো সঙ্গে তুলনা করবেন না : ও ভালো করেছে, সে ভালো পরীক্ষা দিয়েছে, তুমি কেন পারলে না- এরকম কথাবার্তা থেকে দূরে থাকুন। আগেই বলা হয়েছে, সবার মেধা এক সমান নয়। এ কথাটি মাথায় রাখুন।

৬. কেনাকাটার কথা বলবেন না : সন্তানের পরীক্ষায় সময় অন্তত কেনাকাটা করার কথা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন। এমনকি এ নিয়ে তাদের সামনে কোনো আলোচনা করা যাবে না। যদি কোনো কিছু দেয়ার শর্ত থাকে তাহলে তা বজায় রাখার চেষ্টা করুন।

৭. বাইরের ঝামেলা বাড়িতে আনবেন না : কর্মক্ষেত্রে বা বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে যদি কোনো ঝামেলা হয়, তাহলে তা সন্তানের সামনে গোপন রাখুন। নিজেদের কাছে বিষয়গুলো অসহ্য লাগলেও তাদের সামনে তা প্রকাশ করবেন না। সবসময় তাদের সামনে হাসিখুশি থাকার চেষ্টা করুন।

৮. পারিবারে ঝগড়া বাধাবেন না : সন্তানের পরীক্ষার সময় স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হতে নেই। এটি মারাত্মকভাবে পরীক্ষায় তাদের মনোযোগের ব্যাঘাত ঘটায়। তাই খুব সতর্ক থাকুন এই সময়ে যেন পরিবারে কোনো কোন্দল সৃষ্টি না হয়।