মেইন ম্যেনু

সন্তানের মৃত্যুতে মা-বাবার আত্মহত্যা

সাত বছরের ছেলে অভিনাশ। ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত। কিন্তু একাধিক হাসপাতালে নিয়ে গেলেও কর্তৃপক্ষ ভর্তি করাতে রাজি হয়নি। হাসপাতাল থেকে ফেরত পাঠানো হয়। পরের দিনই মারা যায় অভিনাশ। একমাত্র সন্তানের মৃত্যু সইতে না পেরে চারতলা ভবন থেকে লাফ দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন পিতা লক্ষ্মীচন্দ্র ও মা ববিতা।

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের ওডিশা রাজ্যের লাও সারাই এলাকায়। ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া ও এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, আত্মহত্যার আগে ওই দম্পতি একটি চিরকুট লিখে গেছেন। যাতে বলা হয়েছে, তাদের আত্মহত্যার জন্য কেউ দায়ী নয়। বরং তারা নিজেরা সিদ্ধান্ত নিয়েই আত্মহত্যা করেছেন।

খবরে বলা হয়েছে, ওডিশা থেকে অসুস্থ ছেলেকে নিয়ে রাজধানী নয়াদিল্লিতে আসেন ওই দম্পতি। কিন্তু রাজধানীর দুটি বেসরকারি হাসপাতাল তাদের ডেঙ্গু আক্রান্ত ছেলেকে ভর্তি করতে অস্বীকৃতি জানায়। ফলে গত ৮ সেপ্টেম্বর মারা যায় অভিনাশ।

এ ঘটনায় ইউনিয়ন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জে পি নাড্ডা এবং দিল্লি সরকার সংশ্লিষ্ট দুটি হাসপাতালের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। সকল ডেঙ্গু রোগীদের ভর্তি করাতে বেসরকারি হাসপাতালগুলোকে এর আগে সরকারের পক্ষ থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়। কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নির্দেশ লঙ্ঘন করেছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।