মেইন ম্যেনু

সন্তান জন্মের খুশিতে ১ লাখ বৃক্ষরোপণ!

সন্তান আগমনের খুশিতে মাতা-পিতা বিভিন্ন আয়োজন করে সকলকে নিজেদের খুশির জানান দেন। কিন্তু এবার ভিন্নধর্মীভাবে এই আয়োজন সম্পন্ন করলেন ভুটানের রাজা-রানী।

ভুটানের হিমালয় কিংডমে রাজা কেসার এবং রানী পেমা তাদের প্রথম ছেলে সন্তান হবার খুশিতে ১ লক্ষ ৮ হাজার চারা রোপণ করেছেন। বৌদ্ধদের ধর্মানুসারে গাছ মানুষের স্বাস্থ্য, দীর্ঘায়ু, সুস্থতা ও সৌন্দর্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। রাজকুমার যেন সবুজের মাঝে খুব ভালভাবে বড় হয়ে উঠতে পারে তাই এই আয়োজন।

রাজকুমারের জন্মের এক মাস পর এই উদ্যেগ নেয়া হয়। ক্ষমতাসীন ও বিরোধীদলীয় জোটসহ বিভিন্ন ধার্মিক সংগঠন এই কাজে অংশ নেন। ১০৮ সংখ্যাটির বৌদ্ধদের ধর্মীয় গ্রন্থ অনুসারে কিছু উল্লেখযোগ্য সুবিধা রয়েছে। তারা এই সংখ্যাকে আত্মার পরিশোধক হিসেবে মনে করেন। তাই ১,০৮,০০০ গাছ রোপণের মাধ্যমে তারা ১০৮ সংখ্যাটি এখানে অন্তর্ভুক্ত করেছেন।

একজন সমন্বয়কের মতে, ভুটানের ৮২,০০০ পরিবারের প্রত্যেকে একটি করে গাছ লাগিয়েছেন। এবং বাকি ২৬,০০০ গাছ স্বেচ্ছাসেবকদের দ্বারা রোপণ করা হয়েছে।

গত বছর ভুটানে মাত্র এক ঘণ্টার মাঝে ৪৯,০০০ গাছের চারা রোপণ করে বিশ্বরেকর্ড তৈরি করা হয়েছিল। সেখানে সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় ১ লাখ চারা রোপণ করা কোন ব্যাপার ই নয়।

ভুটান মাত্র কিছুদিন পূর্বে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে পরিণত হয়েছে। এরপরও তারা রাজতন্ত্রের মাধ্যমে আনন্দ বজায় রাখতে চান। ভুটানে একটি ‘সুখের বাগান’ তৈরি করা হয়েছে। যেখানে দর্শনার্থীরা গেলে নিজ দেশের নাম দিয়ে সেখানে বৃক্ষরোপণ করেন। ভুটানের নাগরিকদের মতে বৃক্ষরোপণের মাধ্যমে অবশ্যই আনন্দে থাকা যায়। -সুত্র: ইন্ডিয়া টাইম্‌স।