মেইন ম্যেনু

সফল যারা, কেমন ঘুমান তারা?

সফল হতে চাইলে, একটু আগে বিছানা ছাড়ার অভ্যাসটা থাকতে হয়। প্রযুক্তি বিশ্বে শীর্ষ প্রতিষ্ঠানের এমন অনেক নির্বাহী রয়েছেন, যারা দিন শুরু হওয়ার আগেই তাদের দিনটা শুরু করে থাকেন। দিনের আলো ফোটার আগেই কেউ শরীরচর্চা, কেউ ইয়োগা, কেউ ইন্টারনেট সহ অন্যান্য কার্যক্রমের রুটিন মেনে করে নিয়েছেন।

জেনে নিন প্রযুক্তি বিশ্বের ১০ ব্যক্তিত্বকে, যারা সূর্য ওঠার আগেই জেগে ওঠেন।

ইয়াহুর প্রধান নির্বাহী মারিসা মেয়ার মাত্র ৪ ঘণ্টা ঘুমান

মারিসা মেয়ার খুব বেশি মাত্রায় ঘুমান না। ইয়াহুর এই শীর্ষ কমকর্তা সাধারণত ৪ ঘন্টা ঘুমের জন্য বরাদ্দ রাখেন। কখনো ব্যতিক্রম হলে ৬ ঘণ্টা।

অ্যাপলের প্রধান নির্বাহী টিম কুককে ভোর ৫টার দিকে পাওয়া যাবে জিমে

ভোর প্রায় সাড়ে ৪টার দিকে ইমেইলের কাজ সারেন অ্যাপলের প্রথান নির্বাহী টিম কুক। এরপর জিমে যান। তারপর অফিসে। টিম কুক সবার আগে অফিস যান এবং অফিস থেকে বের হোন সবার শেষে।

স্কোয়ারের প্রধান নির্বাহী জ্যাক ডোর্জি সাত সকালে ৬ মাইল জগিং করেন

জ্যাক ডোর্জি তার সকালের রুটিন সম্পর্কে দ্য নিউইয়র্ক টাইমসকে জানিয়েছেন, তিনি ভোর সাড়ে ৫টার দিকে কিছু সময় মেডিটেশন করে, ৬ মাইল জগিং করে থাকেন।

আন্দ্রেসেন হোরোউইজ-এর অংশীদার জেফ জর্দান ভোর ৫টায় অফিসে যান

পেপ্যাল এবং ওপেনটেবিল প্রতিষ্ঠানের সাবেক প্রধান কর্মকর্তা জেফ জর্ডান বর্তমানে আন্দ্রেসেন হেরোউইজ নামক প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের অংশীদার। নিউ ইয়র্ক টাইমসকে এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছিলেন, ভোর ৫টায় তিনি অফিসে ঢুকতেন এবং সন্ধ্যা ৭টার আগে অফিস থেকে বের হতেন না।

সিসকোর প্রাক্তন প্রধান কারিগরি কর্মকর্তা পদ্মশ্রী ও্যারিয়রের চেয়ে আগে ঘুম থেকে ওঠেন খুব কমজনই

প্রযুক্তি বিশ্বে অন্যতম প্রভাবশালী নারী ব্যক্তিত্ব পদ্মশ্রী ও্যারিয়র। সিসকোর প্রাক্তন এই চিফ টেকনিক্যাল ও স্ট্রাটেজি কর্মকর্তার সকালের রুটিন জানলে বিস্মিত হতে হয়। ভোর সাড়ে ৪ টায় ঘুম থেকে ওঠা, এরপর ১ ঘণ্টা ইমেইলে বসা, পরবর্তীতে গুরুত্বপূর্ণ খবর পড়া, ব্যায়াম করা, স্কুলের জন্য সন্তানকে তৈরি করা- সবকিছুই তিনি করতেন সকাল সাড়ে ৮ টার মধ্যে।

ভোর ৫টায় দিন শুরু করেন এওএল-এর প্রধান নির্বাহী টিম আর্মস্ট্রং

এওএল-এর প্রধান নির্বাহী টিম আর্মস্ট্রং খুব ভোরো ঘুম থেকে ওঠেন। ভোর ৫টা থেকে সোয়া ৫টার মধ্যে তিনি বিছানা ছাড়েন। এর মধ্যে সকাল ৭টা পর্যন্ত ইমেইলে বসেন। আর এই সময়ের মধ্যে তিনি ইমেইলের কাজে ফাঁকে ফাঁকেই খবর, শরীর চর্চাসহ অন্যান্য কাজগুলোও সারেন।

জেরক্স-এর সিইও উরসুলা বার্নস ঘুম থেকে জাগেন ভোর সোয়া ৫টায়

উরসুলা বার্নস ভোর সোয়া ৫টায় ঘুম থেকে জেগে ওঠেন এবং সকালের নাস্তার আগে পর্যন্ত অনলাইনে কাজ করেন। এর মধ্যে শরীরচর্চার জন্যও সময় রাখেন। এত সকালে দিন শুরু করেও উরসুলা বার্নস অনেক সময় মধ্যরাত পর্যন্ত কর্মব্যস্ত থাকেন।

অনেক সময় দিন-রাত এক হয়ে যায় এরিকসনের প্রধান নির্বাহী হান্স ভেস্টবার্গের কাছে

সাধারণত সকাল ৮টার মধ্যেই অফিসে চলে আসেন এরিকসনের প্রধান নির্বাহী হান্স ভেস্টবার্গ। এত সকালে তিনি কীভাবে জেগে ওঠেন, সেটাই অনেকের কাছে বিস্ময়ের। অফিসে আসার আগে তিনি অনলাইনে কাজ এবং শরীরচর্চাও করে থাকেন। তার প্রতিষ্ঠান দিন-রাত ২৪ ঘণ্টাই খুব ব্যস্ত সময় পার করে থাকে। সে কারণে প্রায়ই সময় তার ঘুমাতে যেতে কিছুটা দেরী হয়ে যায়। তবে হান্স ভেস্টবার্গের বক্তব্য, অতটুকু ঘুমই যথেষ্ট।
দ্য গার্ডিয়ানকে এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন, ‘আমাদের প্রতিষ্ঠান কখনো ঘুমায় না। বিশ্বের ১৮০টি দেশে আমাদের ব্যবসা রয়েছে, তাই সত্যিকার অর্থে এখানে দিন-রাতের কোনো পার্থক্য নেই।

ভোডাফোনের প্রধান নির্বাহী ভেট্টোরিও কোলাওয়ের দিন শুরু হয় সকাল ৬টায়

গার্ডিয়ানের খবর অনুসারে, ভেট্টোরিও কোলাও দিন শুরু করেন সকাল ৬টায়। শরীরচর্চা শেষে রাত পৌনে ১১টা পর্যন্ত তিনি অফিসে থাকেন। এই সময়ের মধ্যে তিনি এক ফাঁকে তার পরিবারের সঙ্গে ডিনার সেরে নেন। তিনি সাধারণত রাত সাড়ে ১১টার মধ্যে ঘুমিয়ে পড়েন।

ব্রেড এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা পল ইংলিশ সকাল ৬টায় ওঠেন এবং মেডিটেশন করেন

কায়াক এবং ব্লেড নামক অনলাইন ট্রাভেলিং প্রতিষ্ঠানের সহ-প্রতিষ্ঠাতা পল ইংলিশ ঘুম থেকে ওঠেন সকাল ৬টায়। তিনি বলেন, ‘বিছানা ছাড়ার আগে কয়েক মিনিট মেডিটেশন করে থাকি। প্রতিদিন সকাল ৬টার মধ্যে জেগে উঠি এবং এরপর ইমেইল চেক, শরীরচর্চা করে থাকি।’

তথ্যসূত্র: বিজনেস ইনসাইডার