মেইন ম্যেনু

সমঝোতা নয়, সহায়তা করবে ফেসবুক

ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট খুলতে জাতীয় পরিচয়পত্র বা পাসপোর্ট ব্যবহারের বিধান রাখাসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে একটি সমঝোতা স্বাক্ষর করতে চেয়েছিল বাংলাদেশ পুলিশ।

তবে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হওয়া ‘চিফ অব পুলিশ কনফারেন্স’ এ আসা ফেসবুক প্রতিনিধিদল এ ধরনের সমঝোতায় যেতে রাজি হয়নি। এ ক্ষেত্রে বিকল্প একটি উত্তর বাংলদেশ পুলিশকে দিয়েছে প্রতিনিধি দলটি। তারা বলেছে, ‘বাংলাদেশ পুলিশ ফেসবুকের কাছে যেকোনো ধরনের সহায়তা চাইলে তারা তাদের নীতিমালা অনুসরণ করে তা দেবে।’

মঙ্গলবার তিন দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত হওয়া চিফ অব পুলিশ কনফারেন্সের সমাপনী অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ কে এম শহীদুল হক।

বাংলাদেশ পুলিশ ও ইন্টারপোলের যৌথ আয়োজনে দক্ষিণ এশিয়ার ১৪টি দেশের পুলিশ প্রধান ও বিভিন্ন আইন প্রয়োগকারী সংস্থার প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ পুলিশ প্রধান বলেন, ‘বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন অপরাধ সংগঠিত হয়। এ বিষয়ে করণীয় ঠিক করতে সম্মেলনে ফেসবুকের প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। ফেসবুকের ওই প্রতিনিধির সঙ্গে আমাদের দ্বিপাক্ষিক আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ফেসবুকে বিভিন্ন প্রপাগান্ডা ছড়িয়ে জঙ্গিবাদকে উসকে দেওয়া, বিভিন্ন ছবি শেয়ার করে সাম্প্রদায়িক উসকানি দিয়ে হামলার ঘটনা আমরা দেখেছি। এসব বিষয় বিবেচনায় ফেসবুকে একাউন্ট খুলতে জাতীয় পরিচয়পত্র বা পাসপোর্ট ব্যবহারের প্রস্তাবনা করেছিলাম আমরা। এগুলো কীভাবে বন্ধ করা যায় সেসব বিষয়ে সাহায্য প্রত্যাশা করেছি। এ বিষয়ে একটি দ্বিপাক্ষিক চুক্তি করতে চাইলে ফেসবুকের প্রতিনিধিদল সাড়া দেয়নি। তবে তারা যেকোনো বিষয়ে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘ফেসবুকে ধর্মীয় উসকানির কথা শুনে প্রতিনিধিদল বিস্মিত হয়েছে। তারা এমন ঘটনা আগে অন্য কোনো দেশে দেখেনি বলে জানিয়েছে। তারা জানিয়েছে, এসব বিষয় চিহ্নিত করতে। তাদের সঙ্গে আমাদের চুক্তি না হলেও যোগাযোগ থাকবে এবং এসব বিষয়ে সহায়তা করবে বলে জানিয়েছে।’