মেইন ম্যেনু

সময় পেল আ.লীগ, সিদ্ধান্ত হয়নি বিএনপিসহ বাকিদের

হিসাব জমা দেয়ার জন্য আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শুধু আওয়ামী লীগকেই অতিরিক্ত সময় দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। বিএনপিসহ বাকি যারা সময় চেয়েছে তাদের ব্যাপারে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

এ প্রসঙ্গে নির্বাচন কমিশনার মো. শাহ নেওয়াজ বলেন, ‘আবেদনের প্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত সময় দেয়া হয়েছে। বাকি দলগুলোর বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে যে কোন দল সময় বৃদ্ধির জন্য আবেদন করলেই তা গ্রহণ করা হবে না। বাস্তবতা দেখে কমিশন বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। গত বছর আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টিসহ বেশ কয়টি দল সময় বাড়ানোর আবেদন করেছিল। সে সময় এক মাস বাড়িয়েছিল নির্বাচন কমিশন।’

যদি কোনো দল ইসির নির্দেশনা অনুযায়ী আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা না দেয় তাহলে কী ব্যবস্থা নেয়া হবে? এমন প্রশ্নে জবাবে শাহ নেওয়াজ বলেন, ‘আইন অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

তবে এ প্রসঙ্গে ইসির উপ-সচিব মু. আবদুল অদুদ বলেন, ‘সময় বাড়ানো হবে কি না তা এখনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। এ বিষয়ে কমিশন সভায় ফাইল উপস্থাপন করা হবে। তারপর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। রাজনৈতিক দলের হিসাব জমা দেয়ার শেষ দিন আগামীকাল শুক্রবার (৩১ জুলাই) ছুটির দিন হওয়ায় যারা এখনো জমা দেননি তারা আগামী রোববার তাদের আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা দিতে পারবেন।’

কমিশন সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মোট ৪০টি রাজনৈতিক দলের মধ্যে ২৩টি দলের আয়-ব্যয়ের হিসাব ইসিতে পৌঁছেছে এবং নয়টি রাজনৈতিক দল তাদের আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা দেয়ার জন্য সময় চেয়েছে।

সূত্র আরো জানায়, আওয়ামী লীগ ৩১ আগস্ট পর্যন্ত, বিএনপি ১৫ সেপ্টেম্বর, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি ৩১ আগস্ট, লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিটি) ২১ দিন, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ ৩০ আগস্ট, বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোট (মুক্তিজোট) ৩০ আগস্ট, ঐক্যবদ্ধ নাগরিক আন্দোলন ২০ আগস্ট, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফ আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা দেয়ার জন্য একমাস সময় চেয়েছে।

যেসব দলে হিসাব ইসিতে পৌঁছেছে সেগুলো হলো: বাংলাদেশ মুসলিম লীগ-বিএমএল, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি(জাগপা), জাতীয় পার্টি –জেপি, প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দল-পিডিপি, খেলাফত মজলিস, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি, জাতীয় পার্টি, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বি জে পি, গণফ্রন্ট, বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, জাকের পার্টি, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-বাংলাদেশ ন্যাপ, বাংলাদেশের সাম্যবাদী দল (এম.এল), ন্যাশনাল পিপলস পার্টি(এনপিপি), বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি, বাংলাদেশ তরীকত ফেডারেশন, জাতীয়সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ ও ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ।

উল্লেখ্য, আইন অনুযায়ী ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে নিবন্ধিত সব রাজনৈতিক দলের আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা দেয়ার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। না দিলে তাদের নিবন্ধন বাতিলের বিধান রয়েছে। গত ১৭ জুলাই যথা সময়ে আয়-ব্যয়ের হিসাব জমা দিতে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোকে চিঠি দিয়েছিল ইসি। বর্তমানে ইসির নিবন্ধনে ৪০টি রাজনৈতিক দল রয়েছে।