মেইন ম্যেনু

সরছে নিম্নচাপ, বিকেল থেকে বৃষ্টি কমতে পারে কলকাতায়

টানা প্রাকৃতিক দুর্যোগে কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গ। শনিবার থেকেই এমন দুর্যোগে নাজেহাল অবস্থা সকলের। এই অবস্থায় খানিকটা হলেও স্বস্তির আবহাওয়া পূর্বাভাস শুনিয়েছে আলিপুর।
রবিবারের মতো না হলেও সোমবার সকাল থেকে পশলা বৃষ্টিতে ভিজছে কলকাতা। রাস্তাঘাটের বেহাল দশা। তবে, সোমবার সকালে কিছুটা হলেও স্বস্তির আবহাওয়ার পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর। নিম্নচাপ আপাতত সরে গিয়ে বাংলা ও ঝাড়খণ্ড সীমানার উপরে অবস্থান করছে। আলিপুর আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস অনুযায়ী বিকেলের দিকে এই নিম্নচাপ ঝাড়খণ্ডের আরও ভিতরে ঢুকে যাবে। সেক্ষেত্রে বৃষ্টির প্রভাব কমবে কলকাতা এবং তার সংলগ্ন এলাকায়।
যদিও, রবিবার আলিপুর আবহাওয়া দফতর যে পূর্বাভাস দিয়েছিল তাতে কলকাতা ও তার সংলগ্ন এলাকায় ভারী বর্ষণের কথাই জানানো হয়েছিল। সোমবার সকালে নিম্নচাপের অবস্থান বদল নিয়ে যে পূর্বাভাস তারা দিয়েছে, তাতে বৃষ্টি কম হওয়ার ইঙ্গিত থাকলেও সরাসরি ভারী বর্ষণের সম্ভাবনাকে সরিয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।

প্রাকৃতিক দুর্যোগ থাকলেও কলকাতায় তেমন ভারী বৃষ্টি না-হওয়ায় এখনও পর্যন্ত কোথাও জল জমার খবর মেলেনি। যদিও, রাজ্য প্রশাসন সূত্রের খবর, নিম্নচাপ নয়, নিম্নচাপের বায়ুর গতিবেগই সবচেয়ে চিন্তায় রাখছে আবহবিদদের। কারণ, গত বুধবার রাতে শহর প্রায় লন্ডভন্ড হয়ে যায়। যদিও ওইদিন সে অর্থে কোনও ঝড় হয়নি। কিন্তু বায়ুপ্রবাহের গতিবেগ বৃদ্ধি পাওয়ায় শহর বিপর্যস্ত হয়ে গিয়েছিল বলে জানিয়েছেন আবহবিদদের একাংশ।

আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রের খবর, গত বুধবার বায়ুপ্রবাহের গতিবেগ ছিল ঘণ্টা পিছু প্রায় ৪০-৪৫ কিলোমিটার। যা ছোটখাটো কোনও সাইক্লোনের সমান। আবহবিদদের একাংশের বক্তব্য, এমনিতে নিম্নচাপের বায়ুপ্রবাহের গতি নিয়ে খুব একটা চিন্তার কোনও প্রয়োজন হয় না। তাই সাধারণ নজরদারি থাকলেও বাড়তি কোনও সাবধানতা নেওয়ার প্রয়োজন থাকে না। কারণ, নিম্নচাপের বায়ুর গতি সাধারণত থাকে ২৫-৩০ কিলোমিটার, যা স্বাভাবিক। কিন্তু গত বুধবার রাতে নিম্নচাপের সঙ্গে বায়ুর সর্বোচ্চ গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় প্রায় ৭২ কিলোমিটার। পরে তা কমে ৪০-৪৫ কিলোমিটার হলেও তাতেই লন্ডভন্ড অবস্থা হয় শহরের। বহু গাছ উপড়ে যায়।