মেইন ম্যেনু

সাংবাদিক ফয়জুল ইসলাম জাহানের বাবা নুরুল হুদা স্মরণে শোকসভা

এম.এ.আয়াত উল্যা, স্টাফ রিপোর্টার, নোয়াখালী: চ্যানেল নাইন ও বাংলানিউজ ২৪.কমের নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি ফয়জুল ইসলাম জাহানের বাবা ও নোয়াখালীর প্রধান বাণিজ্যিক কেন্দ্র চৌমুহনী বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মহুরম আলহাজ্ব মো. নুরুল হুদা স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার রাত ৮টায় নোয়াখালী টিভি সাংবাদিক ফোরামের আয়োজনে পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির জেলা কার্যালয়ে তাঁর স্মরণে শোকসভায় আলোচনা ও দোয়া মিলাদ অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনাসভায় নোয়াখালী টিভি সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি তাজুল ইসলাম মানিক ভূঁইয়া’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাখেন, নোয়াখালী-৩ (বেগমগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য মামুনুর রশিদ কিরন। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে রাখেন, বেগমগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আক্তারুজ্জামান আনসারী, দৈনিক সচিত্র নোয়াখালীর সম্পাদক ও প্রকাশক আমিরুল ইসলাম হারুন, ভুলুয়া ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আবু জাফর মোহাম্মদ হারুন, দৈনিক মানবজমিনের স্টাফ রিপোর্টার নাসির উদ্দিন বাদল, বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির নোয়াখালী শাখার আহবায়ক মাহাবুবুল আলম। নোয়াখালী টিভি সাংবাদিক ফোরামের যুগ্ম সম্পাদক মোহতাসিম বিল্লাহ সবুজের সঞ্চালনায় আরো বক্তব্য রাখেন, নোয়াখালী সাংবাদিক ইউনিটির সভাপতি ও একাত্তর টিভির প্রতিনিধি মিজানুর রহমান, নোয়াখালী টিভি সাংবাদিক ফোরামের সহ-সভাপতি গিয়াস উদ্দিন মিঠু, চৌমুহনী প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি এসএম রেজোয়ান, সাংবাদিক এসএম জামাল উদ্দিন, এমজেড আজিজ, মহুরম আলহাজ্ব মো. নুরুল হুদা’র মেজো ছেলে সাইফুল ইসলাম সুমন, ছোট ছেলে সাংবাদিক ফয়জুল ইসলাম জাহান প্রমুখ। এসময় প্রবীণ সাংবাদিক এমজি বাবর, আত্ম-অধিকার পত্রিকার সম্পাদক গোলাম মোর্তুজা, ঢাকার ডাক পত্রিকার প্রতিনিধি আবু তাহের খোকন, সাংবাদিক আজাদ ভূঁইয়া, মোফাজ্জল হোসেন টিপু, মোজাম্মেল হোসেন কামাল, ইকবাল হোসেন সুমন, মো. সোহেল, নাসির উদ্দিন মিরাজ, সাইদুজ্জামান রাজু, আরেফিন শাকিল, মনির হোসেন সজিব সহ রাজনীতিবিদ, আত্মীয়-স্বজন সহ অনেকেই এ দোয়া মিলাদে উপস্থিত ছিলেন। প্রসঙ্গত, রোববার রাত ১১টার দিকে তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হন। প্রথমে বেগমগঞ্জের চৌমুহনী লাইফ কেয়ার প্রাইভেট হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে নোয়াখালী প্রাইম হাসপাতালে পাঠানো হয়। অবস্থার অবনতি হলে ঢাকায় নেওয়ার পথে সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) ভোর রাতে কুমিল্লা পৌঁছালে তিনি মারা যান। ওইদিন বিকেলে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার দূর্গাপুর ইউনিয়নের লক্ষ্মীনারায়নপুর গ্রামের পারিবারিক কবর স্থানে তাকে দাফন করা হয়। মৃত্যুকালে তিন ছেলে, দুই মেয়ে ও স্ত্রীসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন তিনি।