মেইন ম্যেনু

২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় শিগগিরই

শিগগিরই ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

আজ শনিবার জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয় আয়োজিত স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচিতে আইনমন্ত্রী এ কথা বলেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার বিচার শেষ পর্যায়ে রয়েছে। যেকোনো দিন রায় ঘোষণা করা হবে। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র রয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখতে কমিশন গঠন করা যেতে পারে।

বঙ্গবন্ধু হত্যায় প্রয়াত রাষ্ট্রপতি ‍জিয়াউর রহমানের মরণোত্তর বিচার করা হবে কি না, তা আইনমন্ত্রীর কাছে জানতে চান এক সংবাদিক। জবাবে তিনি বলেন, আইনে সেই সুযোগ নেই; কেননা ফৌজদারি আইনের মামলায় অভিযুক্ত কোনো আসামি মারা গেলে তার বিচারের কোনো বিধান নেই। যদি তিনি (জিয়াউর রহমান) দোষী হন, তা ইতিহাসের পাতায় লেখা থাকবে।

বঙ্গবন্ধু খুনের ঘটনায় কমিশন

রক্তদান কর্মসূচিতে দেওয়া বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যার নেপথ্যে ষড়যন্ত্রকারীদের বের করতে একটা কমিশন করা উচিত বলে মন্তব্য করেন আইনমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘যারা যারা এর নেপথ্যে ছিলেন ইতিহাসের কারণেই কিন্তু সেটা খোঁজে বের করা দরকার। আমরা চিন্তা ভাবনা করছি তাদের খোঁজে বের করতে কোনো কমিশন গঠন করবার কথা।’

বিএনপি-জামায়াতের জোট সরকারের আমলে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের এক সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে এই ভয়াবহ গ্রেনেড হামলার ঘটনা ঘটে।

হামলায় ২৪ জন নিহত এবং পাঁচ শতাধিক লোক আহত হয়। নিহতদের মধ্যে ছিলেন তৎকালীন মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী মরহুম রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভি রহমান।

তবে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা এবং বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের প্রথম সারির অন্যান্য নেতা এই হত্যাকাণ্ড থেকে বেঁচে যান।