মেইন ম্যেনু

সাগরে ভাসমান বিকল নৌযান থেকে দুই মাস পর উদ্ধার করা হলো এক কলম্বিয়ান অধিবাসিকে!

সম্প্রতি এক কলম্বিয়ান অধিবাসিকে সাগরে ভাসমান নৌযান থেকে উদ্ধার করা হলো। ইঞ্জিন নষ্ট হওয়ার পর থেকে সাগরে ভাসতে থাকে জেভিয়ার এডওয়ার্ডো ওলায়ার নৌযান। তার তিনজন সঙ্গীও একে একে মারা যায়। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে হাফিংটন পোস্ট।প্রশান্ত মহাসাগরে কলম্বিয়ার চারজন আরোহী নিয়ে নৌযানটি বিকল হয়ে যায়। আর এতে প্রশান্ত মহাসাগরের হাজার মাইল অভ্যন্তরে সম্পূর্ণ একা হয়ে যান তারা। তাদের সঙ্গে কোনো খাবার অবশিষ্ট ছিল না। ভয়ংকর এ পরিস্থিতিতে তিনজন সঙ্গী মারা যায়।

সাগরে ভাসমান অবস্থায় ২৯ বছর বয়সী ওলায়ার নৌকা হাজার মাইল দূরে চলে যায়। এতে সম্পূর্ণ পথের দিশা হারিয়ে ফেলেন তিনি। তবে ইঞ্জিন নষ্ট হওয়ায় কোনো গন্তব্যে যাওয়ারও উপায় ছিল না তার।পরিস্থিতি বেঁচে থাকার জন্য অত্যন্ত প্রতিকূল হলেও আশা ছাড়েননি ওলায়ার। তিনি সিগাল ও সাগর থেকে মাছ ধরে তা খেতে থাকেন। আর এতেই প্রায় দুই মাস বেঁচে থাকতে সক্ষম হন তিনি।

কলম্বিয়ান নেভি জানিয়েছে অন্য একটি বাণিজ্যিক জাহাজ তার নৌকাটি উদ্ধার করে। সে জাহাজটির নাম নিক্কেই। জাহাজটি হাওয়াই থেকে প্রায় দুই হাজার মাইল দূর থেকে তাকে উদ্ধার করে।ওলায়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষায় জানা গেছে, তিনি ভালো অবস্থাতেই রয়েছেন। তাকে যুক্তরাষ্ট্রের কোস্ট গার্ডের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। হাওয়াইতে তাকে নেওয়া হয়েছৈ। শীঘ্রই কলম্বিয়ার কর্তৃপক্ষের কাছে তাকে হস্তান্তর করা হবে।

কোস্ট গার্ড জানিয়েছে সে খুবই ভাগ্যবান বলেই এত দূর সাগর থেকে বাঁচতে পেরেছে। যদিও তার সঙ্গীরা মারা গিয়েছে।এ বিষয়ে মার্কিন কোস্ট গার্ডের লে. কমোডর জন ম্যাককিনন বলেন, ‘এ নৌকারোহী খুবই ভাগ্যবান যে, নিক্কেই ভার্দে জাহাজটি তাকে উদ্ধার করতে পেরেছে। এ অঞ্চলটিতে তেমন জাহাজ চলাচল করে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রশান্ত মহাসাগর খুবই সুবিশাল এবং বিপজ্জনক।’ওলায়া ও তার তিন ইকুয়েডরের সঙ্গী একত্রে একটি ২৩ ফুট দীর্ঘ নৌযানে করে মাছ ধরার জন্য সাগরে রওনা দেন প্রায় দুই মাস আগে। এরপর তাদের নৌযানের ইঞ্জিন নষ্ট হয়ে যায়। ফলে নৌযানটি সাগরে ভাসতে ভাসতে বহুদূরে চলে যায়। এ সময় তার সঙ্গীরাও মারা যায়।