মেইন ম্যেনু

সাতক্ষীরায় ১০ গ্রামে ঈদের নামাজ আদায়

সাতক্ষীরায় দশ গ্রাম সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে শুক্রবার দেশের বিভিন্ন জেলায় ঈদুল ফিতর উদযাপন হয়েছে।

সাতক্ষীরা শহরের শহীদ আব্দুর রাজ্জাক পার্ক সংলগ্ন শিল্পকলা একাডেমীর সামনের শিশু পার্কে এবং সাতক্ষীরা সদর উপজেলার সীমান্তবর্তী ভাদড়ায় সৌদি আরবের সাথে মিল রেখে শুক্রবার সকাল ৯ টায় ধর্মীয় ভাব গাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ঈদের নামাজে সদর উপজেলার চাঁদপুর, ভাদড়া, তালা উপজেলার ইসলামকাটি, আশাশুনিসহ জেলার ১০ টি গ্রামের লোকজন এ ঈদের জামাতে অংশ গ্রহন করেন। ঈদের জামায়াতে মহিলারাও অংশগ্রহন করেন। সাতক্ষীরা শিল্পকলা একাডেমীর সামনে অনুষ্ঠিত নামাজের ইমামতি করেন মাওঃ মাকসুদুর রহমান ও ভাদড়ায় অনুষ্ঠিত জামায়াতের ইমামতি করেন মাও. জিয়াউর রহমান।

একক হিজরী ক্যালেন্ডার বাস্তবায়ন কমিটির আয়োজনে সৌদি আররের সাথে মিল রেখে প্রতিবছরের ন্যায় এবারও জেলায় একদিন আগে ঈদ উদযাপিত হয়েছে। ঈদ উদযাপন কমিটির সাধারন সম্পাদক মাহবুবুর রহমান বলেন, বিশ্বের সব খানেই একই দিনে ঈদ উদযাপিত হওয়া উচিৎ বলে মনে করেন তিনি।
তিনি ইামাম আবু হানাফির উদ্ধৃতি দিয়ে আরো জানান, পৃথীবির যে কোন প্রান্তে যদি ঈদের নতুন চাঁদ দেখা যায় এবং তা অন্য প্রান্তের লোক শুনতে পান তাহলে তাদেরকে ঈদের নামাজ পড়া ফরজ। –

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোর এক দিন পরই মূলত আমাদের দেশে পালন করা হয় ঈদ। তবে দেশের বিভিন্ন এলাকায় কিছু পীরের অনুসারীরা সৌদি আরবকে তীর্থভূমি মনে করে তাদের সঙ্গে একই দিন ঈদ পালন করে থাকেন।