মেইন ম্যেনু

সাতক্ষীরায় ৫ম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ

সাতক্ষীরা: জেলার দক্ষিণ আলীপুরে ৫ম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ করেছে এক লম্পট। ধর্ষক ওই এলাকার মৃত মনছব আলী সরদারের ছেলে শামসুর রহমান খোকন (৩৮)।

শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে দক্ষিণ আলিপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, এক সন্তানের বাবা খোকনের স্ত্রী শুক্রবার বাসায় ছিল না। এই সুযোগে লম্পট খোকন পার্শ্ববর্তী মৃত কবির মোড়লের ৫ম শ্রেণি পড়ুয়া শিক্ষার্থীকে (১২) কৌশলে তার বাড়িতে ডেকে আনে। মেয়েটি তার কু-মতলব বুঝতে না পেরে দুপুর ১২টার দিকে খোকনের ঘরে যায়। এসময় খোকন তাকে ধর্ষণ করে। এতে মেয়েটির রক্তক্ষরণ হয়। ধর্ষণের পর বিষয়টি কাউকে না বলার জন্য ভয়ভীতি দেখায় লম্পট খোকন। এদিকে ধর্ষণের পর মেয়েটির শারীরিক অবস্থা ক্রমশ অবনতি হতে থাকে।

ধর্ষিতার মা জানান, তিনি শ্রমিকের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করেন। কাজ শেষে বাড়ি ফিরে মেয়ের শারীরিক অবস্থান অবনতি দেখে তার কাছে প্রশ্ন করে প্রথমে সে কিছু বলতে চায়নি। একপর্যায়ে সন্ধ্যার দিকে বিষয়টি তার মাকে খুলে বলে। এরপর তার মা ওইদিন রাত ১০টার দিকে বিষয়টি আলীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মশিয়ুর রহমান ময়ুর ডাক্তারকে জানান। ময়ূর ডাক্তার ছাত্রীকে চিকিৎসা দেয়ার কথা বলেন এবং এ বিষয়ে পরদিন সকালে সমাধানের আশ্বাস দেন।

এ দিকে সেখান থেকে মা ও মেয়ে বাড়ি আসলে ওই লম্পট খোকন তার দলবল নিয়ে তাদের বাড়িতে হুমকি দেয়। পরদিন শনিবার সকাল ৬টায় পুনরায় ওই লম্পট তাদের বাড়িতে হুমকি দিতে যায়। কিন্তু স্থানীয় জনতা ওই লম্পটকে সকাল ১০টা দিকে আলীপুর হাটখোলা থেকে আটক করে পুলিশে খবর দেয়। পরবর্তীতে সদর থানা পুলিশ তাকে আটক করে।

সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নজরুল ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ভিকটিমের মা বাদী হয়ে শনিবার সকাল ১১টার দিকে একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। আসামিকে আটক করা হয়েছে।