মেইন ম্যেনু

ভারতে পাচারকালে

সাতক্ষীরায় ১০টি স্বর্ণের বারসহ চোরাকারবারি আটক

সাতক্ষীরার কলারোয়ার সীমান্ত এলাকা থেকে ১০টি স্বর্ণের বার ও একটি স্বর্ণের চেইনসহ জহুরুল ইসলাম নামে এক চোরাকারবারিকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)।

শুক্রবার দুপুর দেড়টার দিকে উপজেলার সীমান্তবর্তী কাকডাঙ্গা থেকে তাকে আটক করা হয়।

আটক জহুরুল ইসলাম (৩৭) কলারোয়া উপজেলার কাকডাঙ্গা এলাকার তাছের আলীর পুত্র। তিনি ইতোপূর্বে কাকডাঙ্গা বিওপিতে রান্নার কাজ করতেন।

বিজিবি’র সাতক্ষীরা, ৩৮ ব্যাটালিয়ন সদর দপ্তর এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

satkhira gold photoবিকালে সাতক্ষীরা ৩৮ ব্যাটালিয়ন সদর দপ্তরে সংবাদ সম্মেলন করে ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর নজির আহমেদ বকশি সাংবাদিকদের জানান, শুক্রবার দুপুরে মোটরসাইকেল যোগে দুই যুবক ভারতে পাচারের জন্য ১০টি স্বর্ণের বার নিয়ে সীমান্ত এলাকায় যাচ্ছে- এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কাকডাঙ্গা বিজিবি ক্যাম্পের সুবেদার হায়দার আলির নেতৃত্বে বিজিবি সদস্যরা সেখানে অভিযান চালায়। এসময় বিজিবি’র উপস্থিতি টের পেয়ে এক চোরাকারবারী পালিয়ে গেলেও জহিরুল ইসলাম নামে অপর এক চোরাকারবারী ১০টি স্বর্ণের বার ও একটি চেইনসহ আটক হয়। আটক স্বর্ণের মূল্য ২২ লক্ষ ৮ হাজার টাকা বলে জানায় বিজিবি।

এ ঘটনায় কাকডাঙ্গা বিওপির সুবেদার হায়দার আলী বাদি হয়ে কলারোয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। মামলায় কলারোয়া উপজেলার কেড়াগাছি গ্রামের রজব আলীর ছেলেকে পলাতক আসামি হিসেবে দেখানো হয়েছে।

সূত্র জানায়, জহুরুল ইসলাম ভারতে পাচারের উদ্দেশ্যে স্বর্ণগুলো নিয়ে সকালে ঢাকার একটি পরিবহন থেকে সাতক্ষীরার কলারোয়ায় স্ট্যান্ডে নামে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে স্বর্ণ পাচারের বিষয়টি জানতে পেরে কলারোয়ার কাকডাঙ্গা বিওপির সামনে অভিযান চালিয়ে ১০টি স্বর্ণের বার ও একটি স্বর্ণের চেইনসহ ওই চোরাকারবারীকে আটক করে বিজিবি।

একটি ডিসকভার মোটরসাইকেলযোগে আটক জহুরুল তার পরিহিত লুঙ্গিতে অভিনব কায়দায় কোমরের কাছে স্বর্ণবার গুলো লুকিয়ে ভারতে পাচারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাচ্ছিল। এসময় আটক চোরাকারবারি জহুরুলের সাথে থাকা কেঁড়াগাছি গ্রামের রজব মন্ডলের পুত্র শওকত আলী পালিয়ে যায়। তবে মোটরসাইকেলটি উদ্ধার হয়েছে বলে জানা গেছে।