মেইন ম্যেনু

সাত তলা থেকে শিশুকে ছুড়ে ফেললেন মা

জন্মের খানিক পরেই মেয়েশিশুটিকে সাততলা অ্যাপার্টমেন্টের জানালা থেকে নিচে ছুড়ে ফেলেছিলেন তার মা। তখনো তার নাড়ি কাটা হয়নি। অত উঁচু থেকে নিচে পড়ার কারণেই মারা যায় শিশুটি। এ ঘটনায় মঙ্গলবার ওই নিষ্ঠুর মায়ের বিরুদ্ধে হত্যার আভিযোগ দায়ের করেছে পুলিশ। সোমবার এই নির্মম ঘটনাটি ঘটেছে নিউইয়র্ক শহরের ব্রোনক্স এলাকায়।

এ সম্পর্কে নিউইয়র্কের এক চিকিৎসা কর্মকর্তা ড. বারবারা স্যাম্পসন জানিয়েছেন, অত ওপর থেকে পড়ে যাওয়ার কারণেই শিশুটি মারা গেছে। যখন তাকে ছুঁড়ে ফেলা হয়েছিল তখনো সে জীবিত ছিল বলে তিনি দাবি করেছেন।

এই অমানবিক কাণ্ডটি যিনি ঘটিয়েছেন স্বয়ং শিশুটির মা ৩৩ বছরের জেনিফার বেরি। এ নিয়ে সোমবার থেকে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে যাচ্ছে স্থানীয় পুলিশ। প্রথমে বাচ্চা হওয়ার কথাটি চেপে গেলেও পরে পুলিশি জেরার মুখে তিনিই যে ওই শিশুটির মা তা স্বীকার করেছেন। জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানা যায়, ওই নারী তার গর্ভধারণের ঘটনাটি বা-মা, আত্মীয়-স্বজন এমনকি বন্ধুদের কাছ থেকে গোপন করেছিলেন। জেনিফার তার স্বজনদের বলেছিল, তার গর্ভের বাচ্চা নষ্ট হয়ে গেছে। কেবল জানতেন তার প্রেমিকা। তিনি যেই বাড়ির জানালা থেকে ‍শিশুটিকে ছুড়ে ফেলেছেন সেটি তার প্রেমিকারই অ্যাপার্টমেন্ট।

সোমবার নিচে দুপুরের দিকে পড়ে থাকা শিশুটিকে প্রথম দেখেন ভবনের এক পরিচ্ছন্ন কর্মী। নিচে ঝাড়ু দেয়ার সময় ভবনের সরু গলিতে বাচ্চাটিকে পড়ে থাকতে দেখেন। ততক্ষণে শিশুটি মারা গেছে। তারা তখন পুলিশে খবর দেন। পুলিশ এসে গোটা বাড়ি তল্লাশি চালিয়ে ঘাতক মা জেনিফারকে গ্রেপ্তার করে। তবে তিনি কেন শিশুটিকে হত্যা করেছেন তার কারণ এখনো জানা যায়নি। পুলিশের ধারণা, বাচ্চার লালন পালন সংক্রান্ত নানা ঝামেলা এড়াতেই শিশুটিকে ছুড়ে ফেলেছিলেন জেনিফার।



« (পূর্বের সংবাদ)