মেইন ম্যেনু

সাফল্যের রহস্য জানালেন আল-আমিন

টি-টোয়েন্টিতে সচরাচর পেসাররা ‘লেন্থ’ বল করতে পছন্দ করেন না। কারণ চার-ছক্কার এই ফরম্যাটে ব্যাটসম্যানরা প্রথম ছয় ওভারে বোলারদের ক্যারিয়ার ধ্বংস করে দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েই মাঠে নামেন! পাওয়ার প্লে’র প্রথম ছয় ওভারে ‘যত পারো শট খেলো’ মন্ত্রেই ব্যাটিংয়ে নামেন ব্যাটসম্যানরা। সেজন্য পেসারদের পছন্দের তালিকাতে নেই ‘লেন্থ’ বল। কিন্তু বাংলাদেশের আল-আমিন হোসেন এখানে ভিন্ন।

প্রতিনিয়ত নতুন বলে অনায়সে লেন্থ বল করে যাচ্ছেন আল-আমিন। সাফল্য পাচ্ছেন নিয়মিত। বিপিএলে ছয় ম্যাচে তার ঝুলিতে জমা পড়েছে ১১ উইকেট। এক ম্যাচেই হ্যাটটিকসহ নিয়েছেন পাঁচ উইকেট। বৃহস্পতিবার রংপুর রাইডার্সকে হারানো ম্যাচেও তিন উইকেট নিয়ে ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতেছেন বরিশাল বুলসের এই পেসার।

ম্যাচ শেষে নিজের সাফল্যের রহস্য জানালেন আল-আমিন, ‘টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টে বৈচিত্র্য ঠিক থাকতে হয়। প্রথম ছয় ওভারে যে ভালো করবে তার উইকেট পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। কারণ ব্যাটসম্যানরা এ সময়ে রান করার চেস্টা করে; তখন ভুল করার প্রবণতাও বেশি থাকে। আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি প্রথম ছয় ওভারে যদি টপ অব লেন্থ ও টপে হিট করা যায় তাহলে উইকেট পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। এটাই চেষ্টা করছি।’

রংপুরের ড্যাশিং ওপেনার সৌম্য সরকার ও অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে একই ওভারে আউট করেন আল-আমিন। প্রথম পাওয়ার প্লে’তে দুই ওভার বোলিং করে দশ রান খরচে নেন দুই উইকেট। এক ওভারে সাকিব ও সৌম্যর উইকেট পাওয়াকে বিশাল কিছু বলছেন ডানহাতি এ পেসার। একই সঙ্গে দলের অন্য বোলারদের অসাধারণ বোলিংয়ের প্রশংসাও করলেন, ‘আমার মনে হয় আমরা শুরু থেকেই খুব ভালো বোলিং করেছি। ছয় ওভার পাওয়ার প্লে আমরা ভালোমতো ব্যবহার করতে পেরেছি। এজন্য শুরু থেকেই ম্যাচে এগিয়ে ছিলাম।’