মেইন ম্যেনু

সিনেমার মতো দেশও চলছে যৌথ প্রযোজনায়

দেশ এখন ভারত ও বাংলাদেশের যৌথ প্রযোজনায় এবং দুই দেশের গোয়েন্দাদের পরিচালনায় চলছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

তবে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেছেন, ‘বাংলাদেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করার জন্য একটি বৃহৎ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে ভারত সে আচরণ করবে। তারা কোনো বিশেষ ব্যক্তি কিংবা দল নয়, বাংলাদেশের জনগণের সাথে বন্ধুত্ব করবে।’

শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে ‘রাজনীতির অস্থিরতা : গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন গয়েশ্বর। ‘জাতীয়তাবাদী প্রজন্ম-৭১’ নামের একটি সংগঠন এ সভার আয়োজন করে।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় দাবি করে বলেন, ‘ভারত ও বাংলাদেশের যৌথ প্রযোজনায় যেমন সিনেমা বানানো হচ্ছে, তেমনি দুই দেশের যৌথ প্রযোজনায় আজ বাংলাদেশ চলছে। দেশটা এখন ভারত ও বাংলাদেশের যৌথ প্রযোজনায় দুই দেশের গোয়েন্দাদের পরিচালনায় চলছে।’

তিনি বলেন, ‘গণতন্ত্রের জন্য ভারতের সাথে আমাদের বন্ধুত্ব অপরিহার্য ও গুরুত্বপূর্ণ। তাই আমরা আশা করব, বাংলাদেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করার জন্য একটি বৃহৎ গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে ভারত সে আচরণ করবে। তারা কোনো বিশেষ ব্যক্তি কিংবা দল নয়, বাংলাদেশের জনগণের সাথে বন্ধুত্ব করবে। বাংলাদেশের জনগণও সেটাই চায়।’

জাতীয়তাবাদী প্রজন্ম-৭১ এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ঢালী আমিনুল ইসলাম রিপনের সভাপতিত্ব এতে অন্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন-জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট সৈয়দা আসিফা আশরাফি পাপিয়া, জাতীয় পার্টির (জাফর) প্রেসিডিয়াম সদস্য আহসান হাবিব লিংকন, এনডিপির প্রেসিডিয়াম সদস্য মঞ্জুর হোসেন ঈসা, যুগ্ম মহাসচিব ফরিদ উদ্দিন, আয়োজক সংগঠনের নেত্রী সুমু ফারহানা প্রমুখ।