মেইন ম্যেনু

সিম জালিয়াতির বিষয়ে রবির কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছে বিটিআরসি

আঙুলের ছাপ দিয়ে রি-রেজিস্ট্রেশন করা রবির বৈধ সিম জালিয়াতি করে তুলে তা দিয়ে বিকাশ অ্যাকাউন্টের অর্থ লোপাটের বিষয়ে ব্যাখ্যা চেয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

মঙ্গলবার রবিকে এ চিঠি দেয়া হয়েছে।

ক’দিন আগে চট্টগ্রামে সিম জালিয়াতি করে বিকাশ অ্যাকাউন্টের অর্থ লোপাটের অভিযোগে কুতুব উদ্দিন (৩২) ও মো. ফরহাদ (৩০) নামে দু’জনকে গ্রেফতার করে সাতকানিয়া পুলিশ। কুতুব ও ফরহাদ আগে মোবাইল সিম নিবন্ধন, সিম বিক্রি ও বিকাশের এজেন্ট ছিলেন।

চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার গত রোববার নিজের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, সাতকানিয়া থানার রঙ্গিপাড়া এলাকার বাসিন্দা নুরুন্নাহার নামের এক নারী অভিযোগ নিয়ে এলে তারা সিম জালিয়াতির বিষয়টি জানতে পারেন। ওই নারীর অভিযোগ, গত ২১ এপ্রিল তার নামে নিবন্ধিত রবি সিমটি হঠাৎ বন্ধ হয়ে যায়, যে সিম তিনি বিকাশ অ্যাকাউন্টের জন্যও ব্যবহার করতেন। সিম বন্ধের কারণ জানতে নুরুন্নাহার সাতকানিয়ায় রবি সেবা কেন্দ্রে গেলে তাকে বলা হয়, অন্য আরেকজন ওই সিম তুলে নিয়েছেন।

নুরুন্নাহার পুলিশকে বলেন, বৈধ মালিক হিসেবে তিনি পুনরায় ওই সিম তোলার পর দেখতে পান, তার বিকাশ অ্যাকাউন্টে থাকা ২০ হাজার ৪০০ টাকা তুলে ফেলা হয়েছে।

এ বিষয়ে সাতকানিয়া থানায় অভিযোগ করা হলে পুলিশ সিম তোলার সময় ব্যবহৃত জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর নিয়ে কুতুব উদ্দিন ও মো. ফরহাদ নামে দুজনকে গ্রেফতার করে।

সিম তুলে বিকাশ থেকে অর্থ জালিয়াতি বিষয়ে রবির ম্যানেজার কমিউনিকেশন আশিকুর রহমান বলেন, সিম তুলে বিকাশ থেকে টাকা উত্তোলনের খবরটি অপপ্রচার। এভাবে বিকাশের গোপন পিন নম্বর জানাও সম্ভব নয়।