মেইন ম্যেনু

সিরিজ জয়ের ম্যাচ নাকি সমতার

ওয়ালটন বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরুর আগে থেকেই স্বাগতিক দলে একটা সুর বেজেছে- পরীক্ষা-নিরীক্ষা। প্রথম দুই ম্যাচে সেই পরীক্ষা-নিরীক্ষায় অনেকটা সফলই হয়েছিল বাংলাদেশ। দুটি ম্যাচেই জিতে সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গিয়েছিল স্বাগতিকরা। কিন্তু তৃতীয় ম্যাচে কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে অতিরিক্ত পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে গিয়ে জিম্বাবুয়েকে জয় ‘উপহার’ দিয়েছেন।

পরীক্ষা-নিরীক্ষা বাদ দিয়ে আজ চতুর্থ ও শেষ ম্যাচে তাই সিরিজ জয়ের দিকেই চোখটা বেশি থাকবে মাশরাফি-সাকিবদের। তবে তৃতীয় ম্যাচে দারুণ জয়ের পর সিরিজ সমতায় শেষ করতে আত্মবিশ্বাসী জিম্বাবুয়েও। কোন দল হাসবে শেষ হাসি? জবাব মিলবে আজই। খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে বিকেল ৩টায়। সরাসরি সম্প্রচার করবে জিটিভি (গাজী টেলিভিশন) ও স্টার স্পোর্টস ৪।

তৃতীয় ম্যাচে পাঁচ পরিবর্তন ও চার ক্রিকেটারের অভিষেকের পর আজ শেষ ম্যাচে আবার একাদশের শক্তি বাড়াতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। শেষ দুই ম্যাচে হার্ড হিটার ওপেনার তামিম ইকবালকে বিশ্রাম দেওয়ার কথা ভাবা হলেও আজ তার খেলা প্রায় নিশ্চিত। সেক্ষেত্রে বাদ পড়তে পারেন ইমরুল কায়েস।

এ ছাড়া স্পিনার আরাফাত সানীও আজ খেলবেন। খেলতে পারেন পেসার তাসকিন আহমেদও। সেক্ষেত্রে আগের ম্যাচে অভিষিক্ত মোহাম্মদ শহীদ ও মুক্তার আলী একাদশের বাইরে চলে যাবেন। তবে অন্য দুই অভিষিক্ত আবু হায়দার রনি ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত একাদশে টিকে যেতে পারেন।

অন্যদিকে আগের দুই ম্যাচে রহস্যজনকভাবে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছিল জিম্বাবুয়ের নিয়মিত অধিনায়ক এল্টন চিগুম্বুরাকে। আজ শেষ ম্যাচেও তার জায়গায় হামিল্টন মাসাকাদজাই দলকে নেতৃত্ব দিতে যাচ্ছেন কি না, সেটা বোঝা বেশ মুশকিলই। তবে সিরিজে প্রথমবারের মতো সুযোগ পেতে পারেন চামু চিবাবা।

বছরের প্রথম সিরিজ জয় ছাড়াও আরেকটি কারণে বাংলাদেশের জন্য এই ম্যাচটি গুরুত্বপূর্ণ। এটি বাংলাদেশের ৫০তম টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। কাকতালীয়ভাবে টাইগারদের প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচটিও অনুষ্ঠিত হয়েছিল খুলনার এই স্টেডিয়ামে ২০০৬ সালে। প্রতিপক্ষ ছিল এই জিম্বাবুয়ে। ম্যাচটি বাংলাদেশ জিতেছিল ৪৩ রানে। স্বাভাবিকভাবেই একই প্রতিপক্ষ ও একই ভেন্যুতে ৫০তম ম্যাচটি জয় দিয়ে স্মরণীয় করে রাখতে চাইবেন মাশরাফিরা।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজের টাইটেল স্পন্সর দেশের স্বনামধন্য ইলেকট্রিক্যাল, ইলেকট্রনিকস, অটোমোবাইলস ও হোম অ্যাপ্লায়েন্স প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন। আর পাওয়ার স্পন্সর ওয়ালটন গ্রুপের জনপ্রিয় ব্র্যান্ড ‘মার্সেল’।

বাংলাদেশের সম্ভাব্য একাদশ:

মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাকিব আল হাসান, মোসাদ্দেক হোসেন, নুরুল হাসান সোহান (উইকেটরক্ষক), আরাফাত সানী, তাসকিন আহমেদ ও আবু হায়দার রনি।

জিম্বাবুয়ের সম্ভাব্য একাদশ:

এল্টন চিগুম্বুরা (অধিনায়ক), ভুসি সিবান্দা, চামু চিবাবা, শন উইলিয়ামস, ম্যালকম ওয়ালার, সিকান্দার রাজা, হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, রিচমন্ড মুতুম্বামি (উইকেটরক্ষক), গ্রায়েম ক্রেমার, টেন্দাই চিসোরা ও মুজারাবানি।