মেইন ম্যেনু

সিলেটে গড়ে উঠেছে দেশের প্রথম টার্কি মোরগের খামার

সিলেটে গড়ে উঠেছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জনপ্রিয় টার্কি মোরগের খামার। এক লন্ডন প্রবাসী ঝুঁকি নিয়ে সে দেশ থেকে ডিম এনে সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত উদ্যোগে সিলেটের দক্ষিণ সুরমা এলাকায় দেশের প্রথম টার্কি মোরগের খামার ও হ্যাচারি গড়ে তোলেন। বেসরকারী টেলিভিশন চ্যানেল সময় টিভির এক প্রতিবেদন থেকে এমন তথ্যই জানা গেছে।

এদিকে এই খামারকে কেন্দ্র করে যুব সমাজকে স্বাবলম্বী করার উদ্যোগ নিচ্ছে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর।

প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, ১৭০০ সালে যুক্তরাজ্যে ক্রস ব্রিডিংয়ের মাধ্যমে টার্কি মোরগের জাত উৎপাদন করা হয়। এরপর দ্রুত এই মোরগ যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।

সুস্বাদু এই মোরগের রোগবালাই তেমন হয় না। এমন একটি লাভজনক পাখি জাতীয় প্রাণীর খামার সিলেটে গড়ে তোলার উদ্যোগ নেন লন্ডন প্রবাসী মতিন মিয়া।

গত বছরের এপ্রিলে লন্ডন থেকে পাঁচশোর মতো ডিম এনে সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার নৈখাই গ্রামে তিনি গড়ে তোলেন এম এম টার্কি ফার্ম ও হ্যাচারি। ঝুঁকি নিয়ে এই খামার গড়ে তুললেও এখন তিনি সাড়া পাচ্ছেন ভালই।

প্রতিবেদন থেকে আরও জানা গেছে, ইতোমধ্যে দেশের কয়েকটি চেইন শপে বিক্রি হচ্ছে টার্কি মোরগ। এসব শপিং মলের কর্তৃপক্ষ জানান, ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে টার্কি মোরগ।

এদিকে, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ আলাউদ্দিন জানালেন, টার্কি মোরগ পালনের মাধ্যমে যুব সমাজের আত্মকর্মসংস্থানে ভূমিকা রাখার পাশাপাশি দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখবে।

প্রতিটি সবোর্চ্চ ৩০ কেজি পর্যন্ত ওজনের এই মোরগ চার মাসে বিক্রি উপযোগী হয়। চেইন শপগুলোতে প্রতি কেজি টার্কি মোরগ বিক্রি হচ্ছে সাড়ে চারশত টাকায়।