মেইন ম্যেনু

সীমান্তের সমস্যা স্থানীয়ভাবে সমাধানের প্রস্তাব ডিসিদের

সীমান্তে দুই দেশের স্থানীয় সমস্যা স্থানীয়ভাবে সমাধানের প্রস্তাব দিয়েছেন জেলা প্রশাসকরা। জেলা প্রশাসকদের প্রস্তাব অনুযায়ী, সীমান্তে বাংলাদেশের পক্ষে স্থানীয় জেলা প্রশাসক (ডিসি) এবং ভারতের পক্ষে সংশ্লিষ্ট জেলা ম্যাজিস্ট্রেটরা (ডিএম) নিজেরাই স্থানীয় পর্যায়ের সমস্যাগুলো সমাধান করতে সক্ষম।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে বুধবার সকালে অনুষ্ঠিত জেলা প্রশাসক সম্মেলনে জেলা প্রশাসকরা এই প্রস্তাব করেন। জেলা প্রশাসক সম্মেলনে বুধবারের দ্বিতীয় দিনের দ্বিতীয় কার্যদিবসে আলোচনার বিষয় ছিল প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়।

অধিবেশন শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, ‘স্থানীয় পর্যায়ে ডিসি-ডিএম (বাংলাদেশের জেলা প্রশাসক এবং ভারতের জেলা ম্যাজিস্ট্রেট) বৈঠক নিয়ে অনেক সমস্যা আছে। যেমন অল্প সময়ের জন্য যাতায়াত করলে, বাংলাদেশ থেকে ভারতে বা ভারত থেকে বাংলাদেশে যাতায়াতের বিষয়ে যে অনুমতি তা স্থানীয়ভাবে ডিসিদের দেওয়া যায় কিনা। ডিসিদের এই প্রস্তাবটি ভালো। আমরা চেষ্টা করছি, যতদূর সম্ভব ডিসি এবং ডিএমদের স্থানীয় সমস্যা স্থানীয়ভাবে কীভাবে সমাধান করা যায়। কেননা স্থানীয় সমস্যা স্থানীয়ভাবে সমাধান করতে পারলে ভালো হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সীমান্ত হাট অনেক হচ্ছে। সীমান্তের যেখানে আমাদের রেললাইন সংযোগ ছিল তা আবার নতুন করে চালু করছি। আগরতলার সঙ্গে আমরা নতুন সড়ক এবং রেল যোগাযোগ চালু করতে যাচ্ছি। আমরা ত্রিপুরা থেকে বিদ্যুৎ আমদানি করতে যাচ্ছি।’

জেলা প্রশাসকদের প্রস্তাব সম্পর্কে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ‘কক্সবাজারে যে সমস্যা আছে, বিশেষ করে রোহিঙ্গা নিয়ে, এগুলো চলমান সমস্যা। দেশের বাইরে প্রবাসীরা মারা গেলে তাদের মৃতদেহ দেশে আনতে অনেক সমস্যা হয়। অনেক ক্ষেত্রে সময় লাগছে। এই সমস্যা কীভাবে কাটিয়ে ওঠা যায়, এগুলো নিয়ে জেলা প্রশাসকরা প্রস্তাব দিয়েছেন।’

প্রবাসী কল্যাণ ও বেদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি গণমাধ্যম কর্মীদের বলেন, ‘মানবপাচাররোধে আলাপ হয়েছে। এই বিষয়ে বিজনেস টু বিজনেস আরও কীভাবে সহজ করা যায় তা আলাপ হয়েছে। যারা বিজনেস নিয়ে আসবে তাদের আমরা সুযোগ দিব। বিদেশে শ্রমিক পাঠানোর বিষয়ে আরও কীভাবে ভালো করা যায়, এই বিষয়ে জেলা প্রশাসকদের প্রস্তাব ছিল।’

সীমান্তের নিরাপত্তা নিয়ে জেলা প্রশাসকদের কোনো প্রস্তাব ছিল কিনা। গণমাধ্যমকর্মীদের এমন প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেন, ‘এটা চলমান প্রক্রিয়া। সীমান্তের নিরাপত্তা নিয়ে আমরা সব-সময়েই কাজ করছি। সীমন্ত চুক্তির পর প্রথমবারের মতো আমাদের সীমান্তের মানচিত্র প্রস্তুত করা হচ্ছে।’

জেলা প্রশাসক সম্মেলনে বুধবারের দ্বিতীয় দিনের দ্বিতীয় কার্যদিবসে প্রধান অতিথি ছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রবাসী কল্যাণ ও বেদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি এবং শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মো. মুজিবুল হক চুন্নু। এ ছাড়া সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।