মেইন ম্যেনু

সুখবর টাইগারদের, পাকিস্তানের জন্য বিপদ সংকেত

বিপদের আগামবার্তা যেন এল পাকিস্তানের জন্য। তবে বাংলাদেশের সুখবর থাকছেই। কোনো ষড়যন্ত্রই ক্রিকেটে বাংলাদেশে জররথের পেছনে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারবেনা।

তবে পাকিস্তানের ভাগ্য নিয়ে একটি বিষয় সামনে আসে। আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হটিয়ে সেরা আটে জায়গা করে নেয়ার একটি সুযোগ করে নেয়ার জন্য দরকার লঙ্কানদের বিরুদ্ধে ভালো ক্রিকেট উপহার দেয়া।

পাকিস্তান আনপ্রেডিকটেবল টিম হলেও পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড যে বার্তা দিয়েছেন তাতেই বিপদের সংকেত পাকিস্তান শিবিরে। পাকিস্তানের মূল বোলার ওয়াহাব রিয়াদ এখনো সুস্থ হয়ে উঠতে পারেন নি।

পিসিবি জানায়, লঙ্কানদের বিরুদ্ধে রিয়াজকে পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে জয় কিনারে আসলেও পাকিস্তানের বোলাররা লঙ্কানদের বশ করতে পারেননি। ফলে সিরিজে ১-১ এ ঘুরে দাঁড়িয়েছে লঙ্কানরা। ওয়ানডে ক্রিকেটে পাকিস্তান আইসিসিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সমান পয়েন্ট (৮৮) নিয়ে নয় নম্বরে রয়েছে।

লঙ্কানরা পাকিস্তানকে হারালেই চ্যাম্পিয়ন ট্রফির টিকিট নিশ্চিত হবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের। তখন ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলতে চাইবে পাকিস্তান। তবে নিজেরদের বিপদ ডেকে না আনার জন্য বেঁকে বসতে পারে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

বাংলাদেশকে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি থেকে বাদ দেয়ার জন্য ষড়যন্ত্র হিসাবে যে ক্রিকেট আসর বসার কথা সেটি আত্মঘাতি হতে পারে ওয়েস্ট ইন্ডিজের জন্য।

জিম্বাবুয়ের ক্রিকেট বোর্ডের প্রস্তাবে রাজি হয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ফাঁদে পা রাখতেও পারে। তবে এই বিষয়টিকে পরিস্কার করবে পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার ওয়ানডে ম্যাচের ফলাফল। আর বিপদ সংকেতে পাকিস্তানের চ্যাম্পিয়ন ট্রফির স্বপ্ন নেগেটিভ-পজেটিভে।

ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টাইগারদের দারুণ জয়কে ভালো দৃষ্টিতে দেখেননি পাকিস্তানের কয়েকজন সাবেক ক্রিকেটার। পাগলের মত মিয়াদাদ ও রমিজ রাজা এখানে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ করেন তারা।

তবে বাংলাদেশ এখন এই দুইদেশের যড়যন্ত্রের বাইরে। দুই দেশের যে কোনো একটি দেশকে থাকতে হবে চ্যাম্পিয়ন ট্রফির বাইরে। এখন ক্রিদেশীয় সিরিজ মাঠে গড়ালে এখন আর আঁতাতের প্রশ্ন থাকবে না। সেরা হওয়ার জন্য লড়বে দুই দেশ। বস্তাবতার দৌড়ে কোথার গল্প কোথায় গিয়ে দাঁড়ায় সেটিই মুখ্য বিষয় হয়ে উঠছে।