মেইন ম্যেনু

সুনামিতে ভেসে যাওয়া মেয়েকে দশ বছর পর ফিরে পেলেন মা

সুনামিতে মাত্র চার বছর বয়সের ভেসে গিয়েছিল এক শিশু। হারিয়ে যাওয়ার দশ বছর পরে হারানো সেই শিশুকে ফিরে পেলেন ইন্দোনেশিয়ার আচেহ প্রদেশের এক মা জামালিয়াহ। খুশিতে আত্মহারা মা এখন সুনামিতে হারিয়ে যাওয়া ছেলের প্রতিক্ষায় প্রহর গুনছেন।

২০০৪ সালের সুনামিতে স্রোতের তোড়ে ভেসে গিয়েছিল জামালিয়াহর সাত বছর বয়সী ছেলে প্রাতমা রাংকোটি ও চার বছর বয়সী মেয়ে রওজাতুল জান্নাহ। সুনামিতে মারা গেছে ভেবে জামালিয়াহ দুই সন্তানের আশা প্রায় ছেড়েই দিয়েছিলেন। কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে মেয়েকে ফিরে পেলেন তিনি।

জামালিয়াহ জানিয়েছেন, ‘আল্লাহর অশেষ রহমতে আমরা তাকে ফিরে পেয়েছি। এটা আমাদের জন্য এক অলৌকিক ঘটনা। আমি এবং আমার স্বামী খুবই খুশি তাকে পেয়ে।’

গত জুন মাসে জামালিয়াহর ভাই মেয়েটিকে দেশটির আচেহ প্রদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমের এক গ্রামের স্কুলের সামনে দেখতে পান। তিনি মেয়েটির কপালে একটি আঘাতের চিহ্ন দেখে চিনতে পারেন। মেয়েটি তখন স্কুল থেকে হেঁটে বাড়ি ফিরছিল।

তিনি খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, মেয়েটি সুনামির কবলে পড়ে আচেহ প্রদেশ থেকে ভেসে ভেসে ইন্দোনেশিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিমের দূরবর্তী একটি দ্বীপে চলে যায়। রওজাতুল জান্নাহ যখন হারিয়ে গিয়েছিল তখন তার বয়স ছিল মাত্র চার বছর। সুনামির বিশাল ঢেউ যখন ইন্দোনেশিয়ার পশ্চিম আচেহ প্রদেশে তাদের বাড়িতে আঘাত হানে তখন জান্নাহ এবং তার সাত বছর বয়সী ভাই স্রোতে ভেসে যায়। কিন্তু ৪২ বছর বয়সী জামালিয়াহ এবং তার স্বামী সুনামি থেকে বেঁচে যান। একজন জেলে সুনামির সময় মেয়েটিকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যান। জেলের বউ তাকে লালন-পালন করে বড় করেন। জামালিয়াহ আরও জানান, ‘যখন আমি তাকে দেখলাম, আমার হুদস্পন্দন বেড়ে গেল। আমি তাকে বুকে টেনে নিলাম।