মেইন ম্যেনু

সুনির্দিষ্ট তথ্য ছাড়া ‘জঙ্গি’ নিয়ে সংবাদ নয় : ডিএমপি

গুলশানে আর্টিসান রেস্টুরেন্ট, শোলাকিয়ার ঈদগাহ ময়দানের কাছে সন্ত্রাসী হামলা নিয়ে সুনির্দিষ্ট ‘রেফারেন্স’ ছাড়া কোনো ধরনের অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ না করার অনুরোধ জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম। একই সঙ্গে প্রতিবেদন তৈরিতে সংশ্লিষ্ট তদন্ত কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলারও পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

রোববার (০৭ আগস্ট) রাজধানীর মিন্টো রোডের ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে এক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রতি এ অনুরোধ জানান ডিএমপির এ অতিরিক্ত কমিশনার।

আর্টিসানের সন্ত্রাসী হামলা নিয়ে একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত সংবাদের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘এ ধরনের কথিত অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশের ফলে তদন্তকারীদের ওপর মানসিক চাপ সৃষ্টি হয়। তদন্ত ভিন্নখাতে প্রবাহিত হওয়ার আশঙ্কাও থেকে যায়।’

সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘আপনাদের মাধ্যমে অনুরোধ জানাচ্ছি, এ ধরনের প্রতিবেদন যেন কেউ প্রকাশ না করে। আর কারো কাছে যদি এক্সক্লুসিভ কোনো ছবি বা তথ্য থাকে তারা যেন সরাসরি পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।’

আর্টিসানের সন্ত্রাসী হামলার তদন্তের অগ্রগতি সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘তদন্তে অগ্রগতি আছে। কারা অর্থ ও অস্ত্রের যোগান দিয়েছিল সব তথ্য আমরা পেয়েছি। এর সঙ্গে জড়িত কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করতে পারলেই পুরো ঘটনা পরিষ্কার হয়ে যাবে।’

গুলশানের ঘটনায় কেউ গ্রেপ্তার আছে কি না জানতে চাইলে মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘এ ঘটনায় এখনো কেউ গ্রেপ্তার নেই। তবে তাহমিদ ও হাসনাত করিমকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদের সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি যদি পরিস্কার হয় তবে সে ক্ষেত্রে তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হতে পারে।’

উল্লেখ্য, রোববার একটি জাতীয় দৈনিক রিপোর্ট করেছে, গুলশান হামলার কিছু এক্সক্লুসিভ ছবি তাদের হাতে পৌঁছেছে এবং তা থেকে স্পষ্ট বুঝা যায়, ওই ঘটনায় হাসনাত করিম ও তাহমিদ হাসিব খান জড়িত। আর এ হামলার মূল হোতা হাসনাত নিজেই। তবে তারা সুনির্দিষ্ট করে তথ্যের কোনো উৎসের উল্লেখ করেনি।