মেইন ম্যেনু

সুন্দরী হতে খসবে টাকা !

নিজেকে আর্কষণীয় করতে বিউটি পার্লারে ছুটেন অনেক তরুণীই। তাদের জন্য দু-সংবাদ দিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত! ২০১৫-১৬ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে তিনি জানিয়ে দিলেন, কর বসাচ্ছেন বিউটি পার্লারের প্রশিক্ষণের ওপরে। আর তাতেই সুন্দরীদের কপালে ভাঁজ। তার ওপর সামনে আবার ঈদ। শুধু কি তাই ‘নারীর অহঙ্কার’ হিসেবে সোনা-রূপার ওপরেও চাপিয়ে দিয়েছেন করের বোঝা! সব মিলিয়ে আসছে ঈদ খুব একটা ভালো যাবে না তাদের এ কথা এখন বলাই যায়।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী জানান, বিউটি পার্লার আর রূপসজ্জা প্রশিক্ষণ কার্যক্রমকে ভ্যাটের আওতায় আনা হবে। এতে প্রশিক্ষকরা এবং রূপসজ্জাকারীরা সেবাগ্রহণকারীদের কাছ থেকে উচ্চহার আরোপ করবে।

সেইসঙ্গে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ঘোষিত ২০১৫-১৬ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে সোনা ও রূপার দোকানদার ও পাকাকারী সেবার ক্ষেত্রে মূল্য সংযোজন কর (মূসক) বাড়ানোর প্রস্তাব করেছেন। তিনি স্বর্ণালঙ্কার এবং রৌপ্যকার এবং সোনা ও রূপার দোকানদার এবং স্বর্ণ পাকাকারী সেবার ক্ষেত্রে বিদ্যমান তিন শতাংশ থেকে বৃদ্ধি করে পাঁচ শতাংশ এবং যোগানদার সেবার ক্ষেত্রে বিদ্যমান চার শতাংশ থেকে বৃদ্ধি করে পাঁচ শতাংশ নির্ধারণের প্রস্তাব করেন। একই সঙ্গে ইমিটেশন জুয়েলারির ওপরেও মূসক রয়েছে।

এত দুঃসংবাদের মাঝে খুশির খবরও রয়েছে নারীদের। মেয়েদের ব্লাউজ, শার্ট, স্লিপ, পেটিকোট, নাইটড্রেস, পায়জামা ও সকল প্রকার অন্তর্বাসের ওপর ৬০ শতাংশ বর্তমান সম্পূরক শুল্কহার কমিয়ে ৪৫ শতাংশে নামিয়ে আনা হয়েছে।



« (পূর্বের সংবাদ)