মেইন ম্যেনু

সুপ্রিম কোর্টে হাসিনা-খালেদার লড়াই!

শেষ মুহুর্তের প্রচারণায় জমে উঠেছে সুপ্রিম কোর্ট বারের নির্বাচন। দেশের সর্বোচ্চ আদালতের আাইনজীবীদের নির্বাচনী এ লড়াই শুরু হচ্ছে আগামীকাল ২৩ মার্চ থেকে। এবারের নির্বাচনে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে আওয়ামী লীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের( সাদা প্যানেল) ও বিএনপি সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের(নীল প্যানেলের)মধ্যে।

এই নির্বাচনে সাদা প্যানেলের সভাপতি পদে লড়ছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার উপদেষ্টা ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন ও বিএনপি সমর্থিত নীল প্যানেল থেকে সভাপতি পদে লড়ছেন খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা জয়নুল আবেদীন।

টানা কয়েক বছর ধরে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির নেতৃত্বে থাকা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলের প্রার্থীরা মরিয়া তাদের অবস্থান ধরে রাখতে। অপরদিকে সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ চাচ্ছেন সমিতির নেতৃত্ব পুনরুদ্ধার করতে। তাই সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির কর্তৃত্ব নিতে ভেদাভেদ ভুলে সরকার সমর্থক আইনজীবীরা নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছেন। অপরদিকে জয়ের ধারাবাহিতকা অব্যাহত রাখতে চেষ্টার কোনো কমতি রাখছেন না বিএনপি-জামায়াত সমর্থক আইনজীবীরা। তবে ঢাকা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে জয়কে আশার আলো হিসেবে দেখছেন সরকার সমর্থকরা।

এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্ট বারের প্রাক্তন সম্পাদক ও সরকার সমর্থক আইনজীবী নেতা অ্যাডভোকেট শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘পূর্ণ উদ্যোমে আমাদের প্রচার-প্রচারণা চলছে। আমাদের মধ্যে কোনো ঐক্যহীনতা নেই। সম্প্রতি ঢাকা আইনজীবী সমিতি (ঢাকা বার), ট্যাক্সেস বারসহ সব বারেই আমরা বিজয়ী হয়েছি। আশা করি সুপ্রিম কোর্ট বারেও আমারা বিজয়ী হব।’

নির্বাচনে সরকার সমর্থক সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের (সাদা প্যানেল) নেতৃত্ব দিচ্ছেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন ও বিএনপি-জামায়াত সমর্থক জাতীয়তাবাদী ঐক্য প্যানেল (নীল) থেকে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জয়নুল আবেদীন।

আগামী ২৩ ও ২৪ মার্চ দু’দিনব্যাপী এই নির্বাচনে ভোট গ্রহণ চলবে সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত। সভাপতি, সম্পাদকসহ মোট ১৪টি কার্যনির্বাহী পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ভোটার সংখ্যা ৫ হাজার ২৭ জন। নির্বাচন পরিচালনার জন্য জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মো. হারুনর রশীদকে আহ্ববায়ক করে গঠন করা হয়েছে সাত সদস্যের উপকমিটি।

এবারের ২০১৬-২০১৭ কার্য-নির্বাহী কমিটির নির্বাচনে সাদা প্যানেল থেকে সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, সম্পাদক পদে মো. আজাহার উল্লাহ ভুঁইয়া, সহ-সভাপতি পদে মো. তাহেরুল ইসলাম ও সুরাইয়া বেগম, কোষাধ্যক্ষ পদে রমজান আলী শিকদার, সহ-সম্পাদক পদে এ কে এম রবিউল হাসান সুমন ও শেখ সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, কার্যনির্বাহী সদস্য পদে কুমার দেবুল দে, খান মোহাম্মদ শামীম আজিজ, মো. আব্দুল আজিজ মিয়া মিন্টু, মো. হাবিবুর রহমান হাবিব, এম আশরাফুল ইসলাম, নাসরীন সিদ্দিকা লিনা, শাহানা পারভীন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

নীল প্যানেল থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সভাপতি পদে অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, সম্পাদক পদে এএম মাহবুব উদ্দিন (খোকন), সহ-সভাপতি পদে ফাহিমা নাসরীন মুন্নী ও মো. গোলাম মোস্তফা, কোষাধ্যক্ষ নাসরীন আকতার, সহ সম্পাদক মো.শাহিদুজ্জামান ও মো.ইউসুফ আলী, কার্যনির্বাহী সদস্যপদে মমতাজ বেগম বিউটি, মো. কামাল হোসেন, মো. নাসির উদ্দিন খান সম্রাট, নাসির উদ্দিন আহমেদ অসীম, নাসরিন ফেরদৌস, রেজাউল করিম রেজা, এসকে তাহসিন আলী।

জয়নুল আবেদীন বলেন, ‘নির্বাচনে জয়লাভ করলে বার ও বেঞ্চের মধ্যে যে চিড় ধরেছে সেটা দূর করে সু-সম্পর্কের ব্যবস্থা করব।’

তিনি বলেন, ‘আমি নির্বাচিত হলে আইনজীবীদের পেশার মান উন্নয়ন, বিচার প্রার্থী মানুষের প্রত্যাশা পূরণ, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, মানবাধিকার সুরক্ষা, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ও ভাবমর্যাদা রক্ষার জন্য কাজ করব। অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন বলেন, গতবারের মতো এবারও আমরা বেশির ভাগ পদে জয়ী হব।’

সাদা প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন বলেন, ‘এটি একটি পেশাজীবীদের সংগঠন। তাই এ সংগঠনকে দলীয় রাজনীতির ঊর্ধ্বে কেবল সদস্যদের কল্যাণের উপযোগী সংগঠনে পরিণত করতে চাই।’