মেইন ম্যেনু

সুস্থ থাকার জন্য খান এই ৫ টি সুপারফ্রুট

আমরা সবাই জানি যে ফল খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। যে ফলগুলো স্বাস্থ্যের জন্য অনেক বেশি উপকারী সেই ফলগুলোকেই সুপারফ্রুট বলা হয়। সুপারফ্রুটে অনেক বেশি ভিটামিন, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ফাইবার এবং মিনারেল থাকে। বিশ্বাস করা হয় যে, যারা নিয়মিত এই সুপারফ্রুটগুলো খান তারা দীর্ঘদিন বেঁচে থাকেন, তাদের ত্বক ভালো থাকে এবং তাদের সার্বিক স্বাস্থ্য অন্যদের তুলনায় ভালো থাকে। তাহলে চলুন জেনে নিই এমন ৫ টি সুপারফ্রুটের কথা।

১। আমলকী

আমলকী টক এবং কষটে স্বাদযুক্ত ফল। এটি সাধারণত কাঁচা খাওয়া হয়। খাওয়ার পরে মিষ্টি স্বাদ অনুভূত হয়। আমলকীর আচার ও বানানো যায়। এই ফলটি ভিটামিন সি তে সমৃদ্ধ। স্কার্ভি রোগ নিরাময়ে ব্যবহার করা হয় এই ফলটি। এতে রেচক পদার্থ থাকে। ফলে পেট পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। আমলকীতে আয়রন থাকে বলে অ্যানেমিয়া, জন্ডিস এবং ডিসপেপ্সিয়ার প্রতিকার হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

২। আপেল

ফাইবার ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের চমৎকার উৎস আপেল। আপেলের খোসায় বিশেষ ধরণের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যাকে কোয়ারসেটিন বলে। এটি অ্যান্টিহিস্টামিনের মত কাজ করে। কোয়ারসেটিনের অ্যান্টিইনফ্লামেটরি গুণও আছে। তাই এটি হৃদরোগ ও অ্যালার্জি থেকেও সুরক্ষা দিতে পারে। এক গবেষণায় প্রকাশ করা হয় যে, যারা সপ্তাহে ৫ টি আপেল খান তাদের ফুসফুস যারা আপেল খান না তাদের চেয়ে অনেক বেশি স্বাস্থ্যবান থাকে।

৩। কলা

কলা এনার্জি প্রদান করে এবং পেট ভরতেও সাহায্য করে। একটি পাকা কলায় ২০% চিনি থাকে। এটি খুব সহজেই হজম হয় এবং এর পুষ্টি উপাদান ও সহজেই শরীরে শোষিত হয়। পাকা কলায় ১.২ গ্রাম প্রোটিন, ০.৪ গ্রাম ফাইবার ও ৮৮ গ্রাম পটাসিয়াম থাকে। ভিটামিন বি ও ক্যালসিয়ামের ও চমৎকার উৎস কলা।

৪। ডালিম

অন্য যেকোন ফলের চেয়ে ডালিমে অ্যান্টঅক্সিডেন্টের পরিমাণ বেশি থাকে বলে একে সুপারফ্রুট আখ্যা দেয়া হয়।

৫। কমলা

ভিটামিন সি এর সমৃদ্ধ উৎস কমলা। একটি মাঝারি আকারের কমলা আপনার দৈনিক ভিটামিন সি এর চাহিদা পূরণ করার জন্য যথেষ্ট। এছাড়াও এতে ফাইবার, পটাশিয়াম এবং ক্যালসিয়াম ও থাকে।