মেইন ম্যেনু

সেই অস্ত্রধারীকে এখনো গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ

ঠাকুরগাঁও : দেশের বিভিন্ন পত্রিকা ও অনলাইন নিউজ পোর্টালে ঠাকুরগাঁওয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় প্রকাশ্যে শর্টগান ব্যবহারের ছবি ও প্রতিবেদন প্রকাশের পরেও পুলিশ ওই অস্ত্রধারী ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। ফলে এখনো আতঙ্কে আছে মোহাম্মদপুর এলাকাসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের ভোটাররা।

গত বুধবার ইউপি নির্বাচনে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের প্রার্থী সোহাগ তার নির্বাচনী প্রচারণায় বহিরাগতদের দিয়ে অস্ত্রের মহড়া ও সাধারণ ভোটারের ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। সেই খবর বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশ হয়। তারপরে সেই খবরটি টক অব দ্যা টাউনে পরিণত হয়। কিন্তু প্রশাসন তারপরেও ওই অস্ত্রধারী ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার না করায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।

মোহাম্মদপুর এলাকার বাসিন্দা শরিফুল ইসলাম জানান, ওই অস্ত্রধারী ব্যাক্তি এখনো এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। কেন যে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করছে না জানি না। আমরা হয়তো ভোটকেন্দ্রে ভোট দিতে যাব না। জীবনের চেয়ে তো ভোটের মূল্য বেশি না।

ওই এলাকার আরেক বয়স্ক ভোটার নজরুল ইসলাম জানান, আমরা গ্রামের সাধারণ মানুষ। বন্দুক দেখলে কি আর ভোটকেন্দ্রে যেতে মন চায়। আমরা চাই শান্তিপূর্ণ ভোট। কিন্তু মনে হয় ভোট শান্তিপূর্ণ হবে না।

স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহজাহান হাবিব জানান, আমার কর্মীদের গত রাতে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে মারধর করে। পরে নিজেরাই মার্কা পুরে দিয়ে আমার কর্মীদের পুলিশে দেয়। এখন আমার কোনো কর্মী ভয়ে নির্বাচনে যেতে চাইছে না।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শুকুর মিয়া জানান, পত্রিকায় প্রকাশের পরে আমরা ওই এলাকায় প্রচুর পরিমাণ আইনশৃঙ্খলা বাহিনি মোতায়েন করেছি। আশা করি সকল ইউনিয়নে নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হবে।

ঠাকুরগাঁও পুলিশ সুপার ফারহাত আহম্মেদ জানান, আসামিদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে কি না তা আমি আপনাদের বলবো না তদন্তের জন্য। সময় হলে সব কিছু জানতে পারবেন।