মেইন ম্যেনু

সেক্সডল যখন পবিত্র দেবী

ইন্দোনেশিয়ার সুলাওয়েসি প্রদেশের বানজ্ঞাই দ্বীপের জেলেরা একটি বড় আকারের পুতুল সাগরে ভাসমান অবস্থায় পায়। সেটিকে নিয়ে চলে নানা ধরনের কীর্তি। এলাকাবাসী এক পর্যায়ে দেবীর আসনে বসিয়ে ফেলে সেটিকে।

বিবিসির খবরে বলা হয়, পরে জানা গেছে দেবীর আসনে বসানো পুতুলটি ছিল মূলত একটি সেক্স ডল। দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় চন্দ্রগ্রহণের পরপরই এটি সমুদ্রে পাওয়া যাওয়ায় গ্রামবাসীরা সেটিকে দেবী বলে মনে করতে থাকে।

এরই মধ্যে দেবী হিসেবে সেটিকে পূজা করাও শুরু করে দেয়। মাথায় কাপড় এবং চমৎকার জামাকাপড় পরিয়ে তারা তাকে বাড়িতে সাজিয়ে রাখে।

খবর পেয়ে ইন্দোনেশিয়ান পুলিশ গিয়ে দেখতে পায়, সেটি আসলে একটি সেক্সডল। বড় আকারের পুতুল, যা যৌনকর্মে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

সেখানে গুজব ছড়িয়ে পড়ে যে, এটি ‘বিদাদারি’ বা দেবী বা পরী। পুলিশের কাছে অনেকে এমনকি দাবিও করেন যে, পুতুলটি যখন উদ্ধার করা হয়, তখন সেটি কাঁদছিল।

ইন্দোনেশিয়ার প্রত্যন্ত এলাকাগুলোয় অনেকেই অতি প্রাকৃতিক বিষয়ে বিশ্বাস করেন।

স্থানীয় পুলিশ প্রধান হেরু প্রামুকার্নো বিবিসিকে বলেন, এই গ্রামবাসীদের ইন্টারনেট বা ততটা শিক্ষা নেই, তাই তারা জানেও না সেক্সডল কি। সমুদ্রে এত বড় একটি পুতুল পাওয়া তাই তারা সেটিকে দেবী বলে সম্মান করতে শুরু করে।

সামাজিক মাধ্যমে সেটির ছবি তুলে দেওয়ার পর সেখানে অনেকেই একই ভুল করেন।