মেইন ম্যেনু

সেক্স ডলের কারণে দেহ ব্যবসায় ধস!

জীবন্ত নারীর মত অনুভূতি না থাকলেও চীনের অনেক পুরুষ নিজেদের যৌন চাহিদা মেটাতে বিভিন্ন ধরনের সেক্স ডল ব্যবহার করছে। এর ফলে এসব ডলের চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশটিকে দেহ ব্যবসায় ধস নেমে এসেছে।

এসব ডলের উপাদান হিসেবে থার্মোপ্লাস্টিক ইলাস্টোমার নামে একধরনের রবারগোত্রীয় পদার্থ ব্যবহার করা হয়। এসব পদার্থ সিলিকনের থেকেও নরম। চীনের পুরুষদের কাছে এই সেক্স ডলের চাহিদা এখন তুঙ্গে।

শরীরী চাহিদা পূরণে তা যে নারীর থেকেও বেশি সক্ষম তা নয়। এমনকী দামেও খুব সস্তা নয়। তবে এই পুতুল এমন কিছু সুবিধা তুলে দিচ্ছে যা সমাজিক কাঠামোর পরিপন্থী নয়।

নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক পুরুষই জানাচ্ছেন, এই পুতুল তাদের ইচ্ছে পূরণ করছে তো বটেই। কিন্তু তাতে কোনো অপরাধবোধ থাকছে না।
বিবাহিত অনেক চীনা পুরুষ যারা এসব ডল ব্যবহার করছেন তারা জানান, এসব ডল ব্যবহার করে তারা তাদের স্ত্রীকে ঠকাচ্ছেন বিষয়টি এমনটাও নয়। অথচ অন্যকোনো উপায়ে এই চাহিদা মেটাতে গেলে হয়তো সেই গ্লানির মধ্যে পড়তে হতো। দেহ ব্যববসার রমরমাও অনেকাংশেই কমিয়ে দিচ্ছে এই সেক্স ডল।

এ ছাড়া বেশ কিছু দেশে একটি সন্তান গ্রহণের ক্ষেত্রে সরকারি নির্দেশিকা আছে। সে ক্ষেত্রে শাস্তি এড়াতে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকে ভ্রূণহত্যার ঘটনা। এই যৌনতা মেটানোর বিকল্প ব্যবস্থা কমিয়ে দিচ্ছে সে ঘটনাও।