মেইন ম্যেনু

সেপ্টেম্বরে ১৫ কোটি ডলার বেশি রেমিট্যান্স এসেছে

গত আগস্টের তুলনায় সেপ্টেম্বরে ১৫ কোটি ১২ লাখ ৬০ হাজার ডলার বেশি রেমিট্যান্স এসেছে। এরফলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ও বেড়েছে।

আগস্টে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ও বিশেষায়িত ব্যাংক, বেসরকারি ব্যাংক এবং বাংলাদেশে কর্মরত বিদেশি ব্যাংকের মাধ্যমে মোট রেমিট্যান্স এসেছিল ১১৯ কোটি ৫০ লাখ ২ হাজার ডলার। অন্যদিকে সেপ্টেম্বর মাসে রেমিট্যান্স এসেছে ১৩৪ কোটি ৬২ লাখ ৮০ হাজার ডলার।

রোববার বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে প্রকাশিত পরিসংখ্যান থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

রেমিট্যান্স আয় কোনো মাসে বেশি হয় আবার কোন মাসে কম হয়। এটা নির্ভর করে প্রবাসীদের টাকা পাঠানোর ওপর। তবে সেপ্টেম্বর মাসে ঈদ থাকায় রেমিট্যান্সের প্রবাহ বেড়েছিল।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, রাষ্ট্রায়ত্ত চার বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে গত আগস্ট মাসে মোট ৩৬ কোটি ৯৭ লাখ ১০ ডলারের রেমিট্যান্স এসেছিল। গত সেপ্টেম্বরে এসেছে ৩৯ কোটি ৯৩ লাখ ৭০ হাজার ডলার।

রাষ্ট্রায়ত্ত বনিজ্যিক ব্যাংকগুলোর মধ্যে সেপ্টেম্বরে সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে অগ্রণী ব্যাংকের মাধ্যমে। এ ব্যাংকের মাধ্যমে প্রবাসীরা মোট ১৪ কোটি ৪৮ লাখ ৩০ হাজার ডলার পাঠিয়েছেন। এরপরই সোনালী বাংকের মাধ্যমে ১২ কোটি ৭ লাখ ৫০ হাজার ডলার, জনতা ব্যাংকের মাধ্যমে ১১ কোটি ৩৫ লাখ ৪০ হাজার ডলার এবং রূপালী ব্যাংকের মাধ্যমে দুই কোটি দুইলাখ ৫০ হাজার ডলার এসেছে।

বিশেষায়িত চার ব্যাংকের মাধ্যমে আগস্টে রেমিট্যান্স এসেছিল এক কোটি ৪৮ লাখ ৮০ হাজার ডলার, সেপ্টেম্বরে এসেছে এক কোটি ৪৮ লাখ ৮০ হাজার ডলার। এ সময় এক কৃষি ব্যাংকের মাধ্যমেই এসেছে এক কোটি ৪৭ লাখ ৯০ হাজার ডলার।

বেসরকারিখাতের ৪৭টি ব্যাংকের মাধ্যমে আগস্টে রেমিট্যান্স এসেছিল ৭৯ কোটি ৮৯ লাখ ২০ হাজার ডলার। আর সেপ্টেম্বরে এসেছে ৯১ কোটি ৬৬ লাখ ২০ হাজার ডলার।

এসব ব্যাংকের মধ্যে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের মাধ্যমে সর্বোচ্চ পরিমান রেমিট্যান্স এসেছে। আগস্টে তাদের রেমিট্যান্স এসেছিল ২৯ কোটি ৫৮ লাখ ৮০ হাজার ডলার আর সেপ্টেম্বরে এসেছে ৩৩ কোটি ৯৬ লাখ ৭০ হাজার ডলার। এরপরই আছে ন্যাশনাল ব্যাংক। আগস্টে এ ব্যাংকের রেমিট্যান্স এসেছিল পাঁচ কোটি ৬৮ লাখ ৭০ হাজার ডলার আর সেপ্টেম্বরে এসেছে ছয় কোটি ৪৭ লাখ ৮০ হাজার ডলার।

বাংলাদেশে কর্মরত বিদেশি নয়টি ব্যাংকের মাধ্যমে আগস্টে রেমিট্যান্স এসেছিল এক কোটি ৪৯ লাখ ৭০ হাজার ডলার আর সেপ্টেম্বরে এসেছে এককোটি ৫৪ লাখ ডলার। এর মধ্যে সর্বোচ্চ স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের মাধ্যমে আগস্টে ৫৩ লাখ ৫০ হাজার ডলার এবং সেপ্টেম্বরে ৬৪ লাখ ডলারের রেমিটেন্স এসেছে।