মেইন ম্যেনু

সেলিম ওসমানের পক্ষে হেফাজতের মিছিল

শিক্ষক লাঞ্ছনার ঘটনায় স্থানীয় সংসদ সদস্য (এমপি) একেএম সেলিম ওসমানের পক্ষে ও প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তের ফাঁসির দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে সর্বস্তরের মুসলিম জনতা। ওই সমাবেশ থেকে শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সরকারকে ৭২ ঘণ্টার আলটিমেটাম দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার দুপুরে জুমার নামাজের পর প্রচণ্ড বৃষ্টির মধ্যে শহরের ডিআইটি জামে মসজিদের সামনে বঙ্গবন্ধু সড়কে ওই সমাবেশ ও মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। ব্যানারে ‘নারায়ণগঞ্জের সর্বস্তরের মুসলিম জনতা’ বিষয়টি উল্লেখ করা হলেও ওই কর্মসূচিতে অংশ নেয় হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা।

সামাবেশ থেকে বলা হয়, আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তের শাস্তি দিতে হবে। সেই সঙ্গে তার পুনর্বহালের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারসহ শিক্ষামন্ত্রীকে পদত্যাগ করতে হবে। না করলে নারায়ণগঞ্জ থেকে হরতাল, অবরোধসহ কঠোর আন্দোলন ঘোষণা করা হবে। যারা সারাদেশে ছড়িয়ে পড়বে।

সভাপতির বক্তব্যে নারায়ণগঞ্জ জেলা হেফাজতে ইসলামের আমির ও শহরের অন্যতম বৃহৎ ডিআইটি জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবদুল আউয়াল বলেন, ‘ইতোপূর্বে নারায়ণগঞ্জ থেকে ইসলাম বিদ্বেষের ঘটনায় অনেক আন্দোলন হয়েছে। যাকে নিয়ে ঘটনার সূত্রপাত আমরা ইতোমধ্যে সেই ছেলের (রিফাত) সঙ্গে কথা বলেছি। সে মসজিদে বসে আমাদের কাছে স্বীকার করেছে ওই শিক্ষক ইসলাম নিয়ে কটূক্তি করেছে।’

আন্দোলনের আহ্বান জানিয়ে জেলা হেফাজতের আমির আবদুল আউয়াল বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জের মুসলিম জনতা এ ব্যাপারে আর বসে থাকছে না। আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে যদি শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তের শাস্তি, শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগ ও শিক্ষক পুনর্বহালের সিদ্ধান্ত বাতিল না হয় তাহলে নারায়ণগঞ্জে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে সারাদেশ অচল করে দেয়া হবে।’

ওই সমাবেশে জেলা হেফাজতের সদস্য সচিব মাওলানা আবদুল কাদির, জেলার সমন্বয়ক ফেরদাউসুর রহমান, ওলামা পরিষদের আহ্বায়ক মুফতি আবুল হাশেম, মাওলানা এনায়েত উল্লাহ আব্বাসী, মুফতি দেলোয়ার হোসেন, মুফতি হারুন অর রশিদ, মুফতি সিরাজুল ইসলাম, মাওলানা আনিস আনসারী, মাওলানা আব্দুল লতিফ প্রমুখ বক্তব্য দেন।

সমাবেশে শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তোলা সেই ছাত্র রিফাত হাসানও উপস্থিত ছিল। সেখানে সে শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তর বিষয়ে কথা বলেন।

প্রসঙ্গত, গত ১৩ মে ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তি ও শিক্ষার্থীকে মারধর করার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জের কলাগাছিয়া ইউনিয়নের কল্যান্দির পিয়ার সাত্তার লতিফ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে গণপিটুনি দেয়া হয়। পরে নারায়ণগঞ্জ-৪ (শহর ও বন্দর) আসনের এমপি একেএম সেলিম ওসমান তাকে কান ধরে উঠবস করান।