মেইন ম্যেনু

সৌদি সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ৪ থেকে ৬ জুন সৌদি আরব সফর করবেন। ৫ জুন জেদ্দায় সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আল সৌদের সঙ্গে শীর্ষ বৈঠক করবেন শেখ হাসিনা। সৌদি সরকার ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরের সময় চূড়ান্ত করে বাংলাদেশ সরকারকে জানিয়েছে। খবর-ইত্তেফাক

এবারের সফরে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো হচ্ছে সৌদির শ্রমবাজার সম্পূর্ণ উন্মুক্ত, বিনিয়োগ ও সন্ত্রাসবাদ দমনে অন্যান্য সহযোগিতা। সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন নায়েফ ও উপ-যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান আল সৌদের সঙ্গেও প্রধানমন্ত্রী বৈঠক করবেন বলে কূটনৈতিক সূত্র জানায়।

গত বছর বাদশাহ সালমান শেখ হাসিনাকে সৌদি সফরের আনুষ্ঠানিক আমন্ত্রণ জানান। ঢাকা ও রিয়াদের কর্মকর্তারা এখন প্রধানমন্ত্রীর সফরসূচি চূড়ান্ত করছেন। একটি সূত্র জানায়, প্রচণ্ড গরমের কারণে সৌদি বাদশাহ ও তার প্রশাসনিক কর্মকর্তারা দুই সপ্তাহ আগে রিয়াদ থেকে জেদ্দা গেছেন। সেখান থেকেই বাদশাহের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। জানা যায়, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌদি সরকার ও রাজ পরিবারের কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিও বৈঠক করবেন।

শীর্ষ স্থানীয় সৌদি ব্যবসায়ী ও বিনিয়োগকারীরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করবেন। এ ছাড়া সৌদি প্রবাসী বাংলাদেশিরা প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনা দেবেন বলে জানা গেছে। এর আগে ২০০৯ সালে তিনি দ্বিপক্ষীয় সফরে সৌদি আরব গিয়েছিলেন। গত কয়েক বছরে ঢাকা ও রিয়াদের সম্পর্ক বেশ ঘনিষ্ঠ ও শক্তিশালী হয়েছে। দুই দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়েও সফর হয়েছে। সৌদি আরবে প্রায় ২৫ লাখ বাংলাদেশি কর্মী কাজ করছে। সৌদি শ্রম বাজারে আধা দক্ষ ও দক্ষ জনশক্তির চাহিদা রয়েছে। বাংলাদেশ সৌদিতে আরো বেশি হারে জনশক্তি রপ্তানির মাধ্যমে এই সুযোগকে কাজে লাগাতে চায়। সম্প্রতি সন্ত্রাসবিরোধী কার্যক্রমে বাংলাদেশ-সৌদি আরব অংশীদারিত্বও বৃদ্ধি পেয়েছে।