মেইন ম্যেনু

সৌদী প্রবাসীকে প্রেমের জালে ফাঁসিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিলেন ভাই-বোন…

শরীয়তপুর প্রতিনিধিঃ শরীয়তপুর জেলার ভেদরগঞ্জ উপজেলার ছয়গাঁও ইউনিয়নের পাপরাইল গ্রামের মৃত্যু শামছুল হক মাঝীর ছেলে সৌদী প্রবাসী আরিফ মাঝীকে একই গ্রামের আরব আলী সরদারে মেয়ে শিরুনা প্রেমের জালে জরিয়ে হাতিয়ে নেয় লাখ লাখ টাকা।

স্থানীয় ও মামলা সূত্রে জানা যায়, আরব আলীর মেয়ে শিরুনা আক্তারের সাথে সৌধী প্রবাসী ফুভাতো ভাই মোঃ আলাউদ্দিন পালোয়ানের সাথে বিগত ০৭-১১-১৯৯৪ ইং সালে বিবাহ হয়। বিয়ের কিছুদিন পর পাপরাইল গ্রামের ইউসুব আলীর ছেলে নোয়াব আলীর সাথে পালিয়ে যায় শিরুনা ।

এলাকার শালিসের মাধ্যমে আলাউদ্দিনের ঘরে চলে আশে শিরুনা। আলাউদ্দিন ও শিরুনার ঘড়ে জন্ম নেয় ৩টি সন্তান। কিন্তু সু-চতুর ভাই জসিম সরদারের কথামত বেশি টাকার লোপ দেখিয়ে পরকীয় শুরুকরে আরেক সৌদী প্রবাসী মূত্যু শামছুল হক মাঝীর ছেলে আরিফের সাথে । প্রেমে জরিয়ে বিয়ের প্রলোবন দেখিয়ে শিরুনা ও ভাই জসিম সরদার হাতিয়ে নিতে থাকে লাখ লাখ টাকা।

টাকা ফিরত চাইলে স্বামী আলাউদ্দিন পালোয়ানকে ০৮-০১-২০১৪ইং সালে তালাক দিয়ে ২৫-০৪-২০১৪ইং সালে আরিফকে বিয়ে করে। বিয়ের আগে সু-চতুর জসিম ও তার বোন শিরুনা শরীয়তপুর ইসলামি ব্যাংকের মাধ্যমে ৩০.০৯.২০০৯./১৮.০১.২০১০/২৪.১০.২০১১ সালে হাতিয়ে নেয় লাখ লাখ টাকা। টাকা ফিরত চাইলে আরিফের ছোট ভাই মোঃ নাছির হোসেনকে আমেরিকা নিয়ে যাওয়ার কথা বলে প্রায় ১৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় প্রতারক জসিম ও তার বোন।

এব্যাপারে শরীয়তপুর চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রট আমলী আদালতে ৫ জনকে আসামী করে একটি মামলা করে আরিফের মা রওসনা বেগম। এদিকে পাপরাইল গ্রামের সাজাহান সরদার, জামাল ঢালী, জাকির সরদার ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক বোরহান উদ্দিন সরদার, আকাশ সরদার সহ এলাকার সাধারন মানুরে কথা মতে গত রমজান মাসে আলাউদ্দিন পালোয়ান সৌদী থেকে দেশে আসলে শিরুনা তার বাড়ি যেতে চায়নি।

আলাউদ্দিন তার শেলক জসিমকে সৌধী থাকতে ব্যবসা করার জন্য যে টাকা দেয় তা ফিরত চাইলে সু-চতুর জসিম জোরকরে শিরুনাকে আলাউদিন পালোয়ানের বাড়ি দিয়ে আশে। আলাউদ্দিন এলাকা বাসির কাছে বলে যে, শিরুনা রাত্রে আলাদা ঘড়ে গুমায়, আশে পাশে আমি গেলে নাকি বিষ খাবে।

পরে ভাই দের চাবে শিরুনা আলাউদ্দিনের সাথে আবদ্ধ ঘর সংসার করতে থাকে। আরিফের স্ত্রী আলাউদ্দিনের সাথে ঘর সংসার করছে শুনে তিনি এলাকার শালীসের কাছে তার বিয়ের কাবিন নামা পাঠালে আলাউদ্দিন পালিয়ে যায়। অন্যনদিকে পাপরাইল মসজিদের মুসলিরা বলেন ওই পরিবাটা একটা দেহ ব্যবসাই তার ভাইরা ও বোন মিলে কত মানুষের সাথে যে প্রতারনা করেছে? ।