মেইন ম্যেনু

স্কুলে ঢুকে দুজনকে কামড়ে দিল চিতাবাঘ (ভিডিওসহ)

প্রবাদ আছে, যেখানে বাঘের ভয় সেখানে রাত হয়। কিন্তু ভারতের ব্যাঙ্গালুরু রাজ্যের একটি স্কুলে দিনের বেলায় দুই বনকর্মীকে কামড়ে দিয়েছে একটি চিতাবাঘ।

রোববার ব্যাঙ্গালুরুর মারাথাহাল্লির বার্তুর এলাকার বিবগিওর বেসরকারি স্কুলে ঢুকে পড়ে। ৮ বছর বয়সী ওই পুরুষ চিতাবাঘটি পার্শ্ববর্তী ‘হোয়াইটফিল্ড’ অভয়ারণ্য থেকে স্কুলটিতে ঢুকে পড়েছিল বলে জানিয়েছেন বনকর্মীরা। রোববার ভোর ৪টা ১৩ মিনিটে স্কুলের ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরায় (সিসিটিভি) বাঘটিতে প্রথম শনাক্ত করা হয়।

সিসিটিভিতে দেখা যায়, চিতাটি স্কুলের বিভিন্ন অংশে ঘুরে বেড়াচ্ছে। তবে স্কুলের শিশুরা সৌভাগ্যভান ছিল বলতে হবে; কারণ সাপ্তাহিক বন্ধের দিন রোববার স্কুলটি বন্ধ ছিল। তাৎক্ষণিকভাবে পুলিশ ও বনকর্মীদের জানায় স্কুল কর্তৃপক্ষ। খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ ও বনকর্মীরা।

ততক্ষণে চিতাটি পালিয়ে পার্শ্ববর্তী ঝোপে আশ্রয় নেয়। পুলিশ ও বনকর্মীরা চিতাটিকে যখন খোঁজাখোঁজি করছিলেন এর এক ফাঁকে আবার সেটি স্কুলের আঙ্গিনায় এসে আশ্রয় নেয়। এ সময় এক বনকর্মী চিতাটিকে ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে চেতনানাশক দিয়ে নিরস্ত করতে চান। ভয় পেয়ে চিতাটি আক্রমণ শুরু করে।

চিতার আক্রমণ থেকে বাঁচতে সঞ্জয় গোব্বি নামে এক বনকর্মী স্কুলের একটি দেয়াল টপকে পেরুনোর সময় চিতাটি তাকে টেনে ধরে। সঞ্জয় বাহুতে আঘাত পান। পড়ে আবার আরেকজনকে কামড়ে দেয় চিতাটি।

একপর্যায়ে দূর থেকে চেতনানাশক ছুড়ে বিদ্ধ করা হয় চিতাকে। প্রায় ঘণ্টা খানেক অপেক্ষার পর বনকর্মীরা নিশ্চিত হন, যে চিতাটি অচেতন হয়েছে। এরপর জাল দিয়ে সেটিকে আটক করা হয়।

এরমধ্যে অবশ্য ১০ ঘণ্টা সময় কেটে গেছে। আটকের পর চিতাটিকে পার্শ্ববর্তী বান্নেরঘাট্টা বায়োলজিক্যাল পার্কে নিয়ে যান বনকর্মীরা।