মেইন ম্যেনু

স্ত্রীকে ছেড়ে গরুকে বেছে নিলেন আফাক আলী!

অন্য কোনো কারণে নয়, শুধু সংসারে পোষ্য হিসেবে থাকা একপাল গরুর জন্য নিজের স্ত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক ভাঙল এক ভারতীয়র। স্ত্রী বলেছিলেন, সে ও গরুর মধ্যে কোনো একটি বেছে নিতে। গরুর পাল বাড়িতেই রাখায় রাগ করে স্বামীকে ছেড়ে যান স্ত্রী।

অদ্ভুত এই ঘটনা ঘটেছে ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের এটাওয়ারা অঞ্চলের বৈস খাজা এলাকায়। সেখানকার বাসিন্দা আফাক আলী মুন্না (৫৫)। বাড়িতে একপাল গরু রাখা এবং গরুকে বেশি ভালোবাসার কারণে আফাক আলীকে ছেড়ে যান তার স্ত্রী।

জানা গেছে, ১৫ বছর আগে আফাক আলীর বিয়ে হয়। কিন্তু বিয়ের পরই স্বামীর ঘরে এসে একসঙ্গে এত গরু দেখে চমকে উঠেছিলেন তার স্ত্রী। তারপর স্বামীকে দিনের অধিকাংশ সময় গরুগুলোর পিছনে ব্যয় করতে দেখে অসহ্য হয়ে পড়েন তিনি। প্রথম প্রথম মুখে কিছু না বললেও কয়েক বছর পর স্ত্রী দাবি তোলেন, ‘এই বাড়িতে হয় আমি থাকব, নয়তো তোমার গরু থাকবে।’

স্ত্রীর কথায় অবাক হলেও প্রথমদিকে তেমন গুরুত্ব দিতে চাননি আফাক আলী। কিন্তু দিন যত যেতে থাকে স্ত্রী ততই নাছোড়বান্দার মতো পণ ধরে বসেন। বাড়ি থেকে গরুগুলোকে বেচে দেওয়ার জন্য স্ত্রী সমানে আফাক আলীকে বলতে থাকেন, যা নিয়ে পরিবারে রোজ ঝগড়া বাধত। অবশেষে স্ত্রীকে অনেক বুঝিয়ে সুঝিয়েও কোনোমতেই সামাল দিতে না পেরে অগত্যা গরুদেরই বেছে নেন আফাক আলী। বাড়িতে গরু রেখে দেওয়ায় রাগে স্বামীর ঘর ছেড়ে বাপের বাড়ি চলে যান স্ত্রী।

স্ত্রী তাকে ছেড়ে চলে যাওয়ায় বিন্দুমাত্র আফসোস নেই আফাক আলীর। তিনি জানান, মাত্র ১৫ বছর বয়সে প্রথম গরু কেনেন তিনি। তারপর ধীরে ধীরে সেই গরুর সংখ্যা বেড়ে ১৪ টিতে দাঁড়িয়েছে। গত ৪০ বছর ধরে পোষ্যদের সেবা করে আসছেন তিনি। এখন শুধু স্ত্রীর কথায় তাদের বিক্রি করে দেওয়া সম্ভব নয়। তাইতো হাসিমুখে স্ত্রীকে বিদায় জানিয়ে এখন দিব্যি গরুদের সঙ্গেই ঘর-সংসার করছেন তিনি।

আফাক আলী প্রতিদিন ভোর হতেই গরুর দুধ দোয়ানোর পর বেরিয়ে পড়েন। পরে তাদের জন্য খাবার জোগাড় করেন। গরুগুলোর স্বাস্থ্য পরিচর্যা করতেই দিনের অধিকাংশ সময় পেরিয়ে যায় তার। গরুর দুধ বিক্রি করেই বেশ হেসেখেলে সংসার খরচটাও চলে যায় আফাক আলীর।