মেইন ম্যেনু

‘স্বপ্ন ও বাস্তবতা’ শীর্ষক আঞ্চলিক সেমিনার: বাংলাদেশের সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা

ইয়াজিম ইসলাম পলাশ, রাবি প্রতিনিধি : ‘কৃষি সংস্কার এর প্রকৃত অর্থ হলো কৃষিতে এমন ধরনের কাঠামোগত রূপান্তর যার ফলে উৎপাদিকা শক্তির বিকাশ ত্বরান্বয়নে কৃষির উৎপাদন সম্পর্ক পরিবর্তিত হয়। কৃষি সংস্কারের অনুষঙ্গ হলো ভূমি সংস্কারসহ ভূমি মালিকানার পরিবর্তন, অনুপস্থিত জমি-জলা মালিকানা ব্যবস্থার সুরাহা, উদ্বৃত্ত জমি-জলা দরিদ্র-প্রান্তিক কৃষিজীবী-জলাজীবীদের মধ্যে বণ্টন ও সংশ্লিষ্ট আইন-কানুনের পরিবর্তন।

‘অধ্যাপক ড. মুশাররফ হোসেন স্মারক বক্তৃতা’য় স্মারক বক্তা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অর্থনীতি বিভাগের প্রফেসর আবুল বারকাত তাঁর ‘বাংলাদেশে কৃষি সংস্কারের রাজনৈতিক অর্থনীতি’ শীর্ষক প্রবন্ধে এ কথাগুলো বলেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) অর্থনীতি বিভাগ ও বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতি আয়োজিত ‘বাংলাদেশের সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা ২০১৬-২০২০ : স্বপ্ন ও বাস্তবতা’ শীর্ষক আঞ্চলিক সেমিনারে এই স্মারক বক্তৃতা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রবন্ধে আরও বলা হয়, ‘ভূমি-কৃষি-জলা সংস্কার একটি রাজনৈতিক বিষয়। এ সংস্কারে আর্থ-রাজনৈতিক কাঠামোর প্রসঙ্গটি নিয়ামক ভূমিকা পালন করে। কারণ বিষয়টি আসলে উন্নয়ন প্রক্রিয়ায় প্রান্তিক বঞ্চিতদের নিরন্তরভাবে অন্তর্ভুক্তিকেন্দ্রীক। কৃষি সংস্কারের সমগ্র বিষয়টি মুক্তি ও স্বাধীনতা চেতনায় সিক্ত সুদৃঢ় এক রাজনৈতিক অঙ্গীকারের বিষয়। বিষয়টি যেহেতু জ্ঞানভিত্তিক লড়াই-সংগ্রামের, সেহেতু কৃষি সংস্কার সংশ্লিষ্ট উন্নয়ন নীতি-কৌশল বিষয়ে দেশজ জ্ঞানতত্ত্ব বিনির্মাণ প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখা জরুরি।’

শনিবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনে দিনব্যাপী এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। রাবি অর্থনীতি বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত প্রফেসর সনৎকুমার সাহার সভাপতিত্বে স্মারক বক্তৃতায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য প্রফেসর মুহম্মদ মিজানউদ্দিন। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী সারওয়ার জাহান।

অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক রাবেয়া বাসরী ও যিনাতুল ইসলামের সঞ্চালনায় স্মারক বক্তৃতায় ‘বাংলাদেশে কৃষি সংস্কারের রাজনৈতিক অর্থনীতি’ শীর্ষক প্রবন্ধ পাঠ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অর্থনীতি বিভাগের প্রফেসর আবুল বারকাত। সেমিনারের প্রবন্ধ উপস্থাপন পর্বে ৬টি প্রবন্ধ উপস্থাপিত হয়। এই সেমিনারে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও পেশাজীবী সংস্থা থেকে শিক্ষক, অর্থনীতি ও পরিকল্পনাবিদ, গবেষক, শিক্ষার্থীসহ বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির কর্মকর্তাগণ অংশগ্রহণ করেন।