মেইন ম্যেনু

স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী আমলা ও মধুর মিশ্রণ

আমলা বা আমলকীর পুষ্টি উপকারিতার কথা বেশিরভাগ মানুষই জানেন। মধুতে আমলা ভিজিয়ে রাখলে শুধু দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করা যায় তাই না বরং এতে আমলার স্বাস্থ্য উপকারিতা এবং স্বাদ ও বৃদ্ধি পায় বহুগুণ। মধু ও আমলার মিশ্রণের স্বাস্থ্য উপকারিতার কথাই জানবো আজ।

১। জন্ডিস প্রতিরোধ করে

আমলা ও মধুর মিশ্রণ পান করলে লিভার সুস্থ থাকে এবং জন্ডিস নিরাময়ে সাহায্য করে। এটি শরীরে সঞ্চিত পিত্ত রঞ্জক এবং যকৃতের বিষাক্ত পদার্থ অপসারণে সাহায্য করে। এভাবেই যকৃতকে ভালোভাবে কাজ করতে সাহায্য করে।

২। বয়সের ছাপ প্রতিরোধ করে

প্রতিদিন ১ চামচ আমলা ও মধুর মিশ্রণ আপনাকে তরুণ থাকতে সাহায্য করবে। এটি প্রয়োজনীয় এনার্জি প্রদানের পাশাপাশি আপনার শরীরকে পুনরুজ্জীবিত করতে সাহায্য করবে। এছাড়াও এটি বলিরেখা ও ফাইন লাইন দূর করতে সাহায্য করে।

৩। অ্যাজমা প্রতিরোধে

মধুতে ভেজানো আমলা খেলে অ্যাজমা, ব্রংকাইটিস ও শ্বসনতন্ত্রের অন্যান্য সমস্যা থেকে মুক্ত থাকতে সাহায্য করে। ফুসফুসের রক্তনালীকে সংকীর্ণ করে দেয় টক্সিন ও ফ্রি র‍্যাডিকেলের উপস্থিতি। এই টক্সিন ও ফ্রি র‍্যাডিকেল মুক্ত হতে সাহায্য করে আমলা ও মধুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এভাবেই অ্যাজমা অ্যাটাক হওয়া প্রতিরোধ করে আমলা ও মধুর মিশ্রণ।

৪। ঠান্ডা, কাশি ও গলার ইনফেকশন ভালো করে

১ টেবিল চামচ আমলা ও মধুর মিশ্রণ আপনাকে ঠান্ডা, কাশি ও গলা ব্যথা থেকে মুক্তি দিতে পারে। এর সাথে সামান্য আদার রস মিশিয়ে নিতে পারেন। আমলা ও মধুতে সংক্রমণরোধী উপাদান থাকে বলে ইনফেকশন দূর করতে পারে।

৫। পরিপাকের সমস্যা নিরাময়

বদহজম ও এসিডিটির সবচেয়ে ভালো প্রতিকার হচ্ছে মধুতে ভেজানো আমলা। এটি ক্ষুধা বৃদ্ধি করতে ও খাদ্যের সঠিক হজমে সাহায্য করে। কোষ্ঠকাঠিন্য ও পাইলস এর সমস্যা থেকে মুক্ত হতে মধুতে ভেজানো আমলা খান এবং দ্রবণটি পান করুন।

৬। শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বাহির করে দেয়

শরীরকে বিষ মুক্ত হতে ও ফ্রি র‍্যাডিকেলের ক্ষতি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে মধুতে ভেজানো আমলা। এর ফলে ওজন বৃদ্ধিসহ অন্যান্য স্বাস্থ্য সমস্যা প্রতিরোধ হয়। অন্ত্র ও রক্ত থেকে টক্সিন বাহির করে দেয়ার জন্য প্রতিদিন সকালে টক-মিষ্টি স্বাদের আমলা-মধু খান এবং এর দ্রবণটি পান করুন।

৭। বন্ধাত্য নিরাময়

প্রতিদিন মধুতে ভেজানো আমলা খেলে সন্তান ধারণের ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় এবং পিরিয়ডের ব্যথা কমে। অনিয়মিত পিরিয়ডের সমস্যাও দূর হয়।

৮। স্বাস্থ্যবান চুল

আমলা ও মধুর মিশ্রণ চুলে ব্যবহার করলে চুল মসৃণ ও স্বাস্থ্যবান হয়। এটি চুল পড়া প্রতিরোধ করে এবং দুর্বল চুলকে শক্তিশালী করে। কন্ডিশনারের পরিবর্তে মধু ও আমলার মিশ্রণ ব্যবহার করতে পারেন।

একটি জারের অর্ধেক মধু দিয়ে পূর্ণ করে এর মধ্যে আমলা দিয়ে জারের মুখটি বন্ধ করে রাখুন। কয়েকদিন পরে দেখতে পাবেন আমলা নরম হয়ে গেছে এবং একটি দ্রবণ তৈরি হয়েছে। ঠিক ঘরে তৈরি জ্যামের মত। এই মিশ্রণটি এক মাস ভালো থাকবে।