মেইন ম্যেনু

স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটিতে আলোচনায় ২৩ শীর্ষ নেতা

রাজপথের আন্দোলনে ঘুরে দাঁড়াতে ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলের মাধ্যমে নতুন নির্বাহী কমিটি গঠন করছে বিএনপি। ইতোমধ্যে তিন ধাপে প্রায় ৪০ নেতার নাম ঘোষণা করেছে দলটি। এছাড়া মূল কমিটির পাশাপাশি বেশ কয়েকটি অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের কমিটি গঠন প্রক্রিয়াও চূড়ান্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি যে কোনো মুহূর্তে ঘোষণা করা হতে পারে। দলীয় সূত্রে এমন তথ্য জানা গেছে।

সূত্রে জানা যায়, স্বেচ্ছাসেবক দল গঠনের পর দলে তেমন প্রভাব না থাকলেও বর্তমানে ফর্মে থাকা এ সংগঠনটির শীর্ষ পদ পেতে নানাভাবে তদবির শুরু করেছেন সাবেক ছাত্রনেতাসহ বর্তমান কমিটির কয়েকজন প্রথম সারীর নেতাও। শীর্ষ পদ পেতে উঠেপড়ে লেগেছেন তারা।

সংগঠনটির নেতাকর্মীরা জানান, সভাপতি পদে বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক মীর সরাফাত আলী সফু, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল বারী বাবুর নাম শোনা যাচ্ছে। তবে সংগঠটির একাংশ বিএনপির সহ-স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক এ বি এম মোশাররফ হোসেনকে দায়িত্ব দেয়া হলেও মন্দ হবে না বলে মনে করেন।

অন্যদিকে, সংগঠনটির আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ পদ সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম আলীম, ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশিদ হাবিব ও বর্তমান কমিটির যুগ্ম সম্পাদক ইয়াছিন আলীর নাম শোনা যাচ্ছে।

এ ছাড়া বাকি শীর্ষ পদগুলোতে যাদের নাম নিয়ে বেশ আলোচনা হচ্ছে তারা হলেন, বর্তমান কমিটির প্রথম যুগ্ম সম্পাদক রেজাউর রহমান রিপন, সহ-সভাপতি সাঈফুল ইসলাম পটু, আসাদুজ্জামান নেছার, মারুফ আল হাছান, আবু তাহের পাটওয়ারী, যুগ্ম সম্পাদক আনু মোহাম্মদ শামীম আজাদ, অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম, ওয়াহিদ বিন ইমতিয়াজ বকুল, কামরুজ্জামান বিপ্লব, ঢাকা মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহ্বায়ক লিটন মাহমুদ, সহ-সাধারণ সম্পাদক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, দফতর সম্পাদক আকতারুজ্জামান বাচ্চু, সহ-দফতর সম্পাদক আকরামুজ্জামান টুকন, বর্তমান কমিটির সদস্য এ বি এম মুকুল, মোজাম্মেল মৃধা, আলাউদ্দিন জুয়েল।

এদিকে, গঠনতন্ত্র অনুযায়ী প্রতি তিন বছর পর পর কমিটি হওয়ার কথা থাকলেও বিএনপির অন্যতম শক্তিশালী এ অঙ্গ সংগঠন স্বেচ্ছাসেবক দলের বর্তমান কমিটি পেরিয়েছে ছয় বছরেরও বেশি সময়।

শীর্ষ পদগুলোতে যাদের নাম বেশ আলোচনায় শোনা যাচ্ছে তাদের কয়েকজনকে নিয়ে নানা আপত্তিও রয়েছে সংগঠনটির নেতাকর্মীর। সূত্র মতে, নবগঠিত কমিটিতে নিজেদের ভাবমূর্তি ও সার্বিক দিক বিবেচনায় বর্তমান কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক সফিউল বারী বাবুকে সভাপতি ও ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি আব্দুল কাদের ভূইয়া জুয়েলকে সাধারণ সম্পাদক করার কথাই বেশি শোনা যাচ্ছে নেতাকর্মীদের মাঝে।

অন্যদিকে, দলে দীর্ঘদিন নিস্ক্রিয় থাকার পরেও হঠাৎ শীর্ষ পদে আমিরুল ইসলাম আলীমের নাম আসায় সঙ্কা প্রকাশ করেছেন অনেকে। সমালোচকেরা বলছেন, শুধু লবিং তদবির করে আলোচিত হওয়ার চেষ্টা করছেন আলীম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতা পরবর্তীতে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদকের মতো গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকেও তার (আলীম) কিছুই করতে না পারার ইতিহাস খুব বেশি দূরে নয়।

বিগত সময়ে যারা নেতৃত্ব পালন করতে গিয়ে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন তাদেরকে শীর্ষ পদে না রাখার পরামর্শ তাদের।