মেইন ম্যেনু

হঠাৎ করেই স্বর্ণ মন্দিরে ঐশ্বরিয়া

হঠাৎ করেই ‘গোল্ডেন টেম্পল’ বা স্বর্ণ মন্দিরে গিয়ে হাজির বলিউড সুন্দরী ও বচ্চন পরিবারের পুত্রবধু ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন। শুধু তাই না সেখানে গিয়ে তিনি সোজা লঙ্গরখানায় ঢুকে গেলেন। নিজ হাতে রান্নাও করলেন শ’ দেড়শো মানুষের!

হ্যাঁ। গতকাল পাঞ্জাবে অবস্থিত প্রসিদ্ধ গোল্ডেন টেম্পলে গিয়ে এমনটিই করতে দেখা গেল বচ্চন পরিবারের পুত্র বধু ঐশ্বরিয়াকে! তবে স্বর্ণ মন্দিরে এটা ঐশ্বরিয়া রাইয়ের ব্যক্তিগত ট্যুর নয়। বরং সিনেমার শুটিংয়ের প্রয়োজনেই তিনি সেখানে গিয়েছেন।

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, পাকিস্তানের জেলে নিহত ভারতীয় যুবক সর্বজিতের আত্মজীবনীমূলক সিনেমা ‘সর্বজিত’-এ অভিনয় নিয়ে ব্যস্ত আছেন ঐশ্বরিয়া রাই। আর এই ছবির শুটিংয়ের জন্যই তিনি হাজির হয়েছিলেন শিখ ধর্মালম্বীদের প্রসিদ্ধ স্বর্ণ মন্দিরে। পবিত্রতম এই স্থানটিতে প্রবেশের সময় ঐশ্বরিয়া পোশাক দ্বারা পুরো আবৃত ছিলেন।

আর এরপরেই ঐশ্বরিয়াকে দেখা যায় লঙ্গরখানায়। স্বর্ণ মন্দিরের লঙ্গরখানায় প্রবেশ করে তিনি নাকি নিজ হাতে রান্নাও করেন। এরপর মন্দিরের ফ্লোর পরিস্কার করে সেখানেই ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনায় বসেন তিনি।

সকালে গোল্ডেন টেম্পলে হাজির হলেও ঐশ্বরিয়া সেখানে শুটিং শুরু করেন বিকাল নাগাদ। যা চলে সন্ধ্যা রাত পর্যন্ত।

প্রসঙ্গত, সর্বজিৎ সিং ভারতের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে পাকিস্তানে কারাবন্দী ভারতীয় নাগরিক, যিনি লাহোর ও মুলতানে বোমা হামলার ঘটনায় অভিযুক্ত মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামী ছিলেন। ১৯৯০ সাল থেকে লাহোর কারাগারে বন্দি ছিলেন তিনি। এর আগে সর্বজিৎ সিংকে মুক্তি দিতে পাকিস্তানের কাছে আনুষ্ঠানিক আহবান জানিয়েছিল নয়াদিল্লি। ৪৯ বছর বয়সী এই বন্দিকে ভারতে সর্বোচ্চ স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণের সুবিধার্থে স্থানান্তরেরও আহবান জানিয়েছিল ভারত সরকার। কিন্তু পরবর্তীতে পাকিস্তানের জেলখানায় অস্বাভাবিক মৃত্যু হয় তার। এই সর্বজিতের বোনের চরিত্রেই অভিনয় করবেন ঐশ্বরিয়া। ছবিটি মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে মে মাসের ২০ তারিখে।