মেইন ম্যেনু

হঠাৎ মুখে দুর্গন্ধ? জেনে নিন কী করবেন

সারাদিন আপনি কাজে এতো ব্যস্ত, এতোই ব্যস্ত যে নিজের নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ আছে কি না, মুখ পরিষ্কার করার দরকার আছে কি না তার দিকে মোটেই নজর নেই আপনার। ব্যাপারটা বোধগম্য বটে, কিন্তু মুখের স্বাস্থ্যকে অগ্রাহ্য করাটাও আপনার উচিৎ হচ্ছে না। দেখা গেল জরুরী একটা অ্যাপয়েন্টমেন্ট বা মিটিং এর সময়েই ভীষণ দুর্গন্ধ আসা শুরু করলো আপনার মুখ থেকে। তখন কি বিব্রতকর ব্যাপারটা হবে ভাবুন তো! এই সমস্যা এড়াতে মনে রাখুন এই কয়েকটি জরুরী তথ্য। এগুলো জানা থাকলে সারাদিন বাইরে কাটালেও আপনার মুখ থাকবে দুর্গন্ধমুক্ত।

আপনি যখন দাঁত ব্রাশ করতে বা ফ্লস করতে ভুলে যান, তখন ব্যাকটেরিয়াদের মহোৎসব শুরু হয়ে যায় আপনার মুখের ভেতরে। এ থেকে তৈরি হয় দুর্গন্ধ। এর পাশাপাশি দেখা দিতে পারে দাঁতে পোকা এবং মাড়ির রোগ। সুস্থ থাকার জন্য খুব ব্যস্থ অবস্থাতেও আপনার মুখের যত্ন নিতে হবে। যারা খুব ব্যস্ত জীবন যাপন করেন তাদের জন্য রইলো এই টিপসগুলো।

১) ব্যাগে রাখুন ট্রাভেল সাইজড প্রডাক্ট

বিশেষ করে শহরের বাইরে যাবার সময়ে ব্যাগে রাখুন মুখ পরিষ্কার রাখার পণ্যগুলো। টুথব্রাশ, ছোট একটা টুথপেস্টের স্যাশে, ফ্লস স্টিক এবং মাউথওয়াশ বা স্প্রে এগুলো রাখুন ব্যাগে। চটজলদি মুখের দুর্গন্ধ ঢাকার জন্য এসব স্প্রে খুব কাজে আসে। আর দাঁতে কিছু আটকে গেলে দেখতে খারাপ লাগে, তা দ্রুত সরিয়ে ফেলার জন্য ব্যবহার করতে পারেন ফ্লস।

২) প্রচুর পানি পান করুন

পানি পান করলে মুখ থেকে খাবারের কণা এবং অতিরিক্ত ব্যাকটেরিয়া ধুয়ে চলে যাবে। এতে মুখের গন্ধ থাকবে না। এছাড়া মুখ শুকনো হয়ে গেলেও মুখে দুর্গন্ধ হয়। এই ব্যাপারটাও এড়ানো যায় বেশি করে পানি পান করলে। সবসময় সাথে রাখুন একটা পানির বোতল।

) কিছু খাদ্য ও পানীয় এড়িয়ে চলুন

আপনি যদি জানেন আজকে এমন কোনো কাজ আছে যার জন্য মুখে দুর্গন্ধ হওয়াটা আপনার জন্য বিব্রতকর হবে, তাহল এড়িয়ে চলুন এমন সব খাবার ও পানীয় যেগুলো দুর্গন্ধ তৈরি করে। এর পাঝে আছে ভাজাভুজি, যেমন পটেটো চিপস, চিনিযুক্ত স্ন্যাক্স, কোমল পানীয়। এগুলো খাওয়া হলেও খাবার পর ভালো করে মুখ ধুয়ে নিতে হবে। আর রসুন বা কাঁচা পিঁয়াজ খাওয়া হলে দাঁত মেজে মাউথওয়াশ ব্যবহার করাটাই সবচাইতে ভালো বুদ্ধি।

৪) সুগার-ফ্রি মিন্ট, চুইং গাম অথবা লজেন্স ব্যবহার করুন

লজেন্স বা চুইং গাম চিবিয়ে মুখকে ব্যস্ত রাখলে ময়লা জমবে না। এগুলো মুখে লালার পরিমাণ বৃদ্ধি করে, যা মুখ থেকে খাবারের কণা এবং ব্যাকটেরিয়া দূর করতে সহায়ক। চিনির বদলে জাইলিটল আছে এমন গাম ব্যবহার করুন। এগুলো ব্যাকটেরিয়ার সাথে যুদ্ধ করে।

৫) ধনেপাতা অথবা পুদিনাপাতা

টাটকা ধনেপাতা অথবা পুদিনা পাতা চিবিয়ে খেলেও মুখের দুর্গন্ধ দূর হয়। রেস্টুরেন্ট খাওয়া রপর যদি মনে হয় খাওয়ার দুর্গন্ধ মুখে রয়ে গেছে তাহলে তাদের কিচেন থেকে কিছুটা ধনেপাতা বা পুদিনা পাতা নিয়ে চিবিয়ে নিতে পারে।

) অ্যান্টাসিড

অনেক সময়ে মুখের কোনো সমস্যা ছাড়াই নিঃশ্বাসে গন্ধ হয়। এর কারণ হতে পারে আপনার পেটের সমস্যা। এক্ষেত্রে একটা অ্যান্টাসিড চুষে খেলে পেটের সমস্যা দূর হবে এবং মুখ থেকেও দুর্গন্ধ দূর হবে।

এছাড়াও মুখ এবং গলার কিছু রোগের কারণে মুখে গন্ধ হতে পারে ঘন ঘন। কোনো উপায়েই এই দুর্গন্ধ দূর করতে না পারলে অবশ্যই ডাক্তার দেখান। কারণ এর পেছনে আরও গুরুতর কোনো কারণ যেমন ইনফেকশন, মাড়ির রোগ, টনসিলে পাথর হওয়া এসব কারণে মুখে দুর্গন্ধ হতে পারে। আর আরেকটি কাজ মুখে দুর্গন্ধের জন্য দায়ী তা হলো তামাক। আপনার যদি ধূমপান অথবা তামাক চিবানোর অভ্যাস থেকে থাকে তবে এই অভ্যাস বাদ দেওয়াই মুখের দুর্গন্ধ দূর করতে সহায়ক হবে।