মেইন ম্যেনু

হরতালে লাঠিচার্জ করায় এসআই ক্লোজড

বরিশালে নগরীতে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের হরতাল কর্মসূচিতে লাঠিচার্জের ঘটনায় পবিত্র কুমার নামে এক উপ-পরিদর্শককে (এসআই) সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

সোমবার রাত ৮টার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের মূখপাত্র সহকারি কমিশনার (এসি) আবু সাঈদ।

এসআই পবিত্র কুমার বরিশাল মেট্রোপলিটন কোতোয়ালি মডেল থানায় কর্মরত ছিলেন।

এসি আবু সাঈদ জানান, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজছাত্র সোহাগী জাহান তনুর হত্যাকারীদের বিচারের দাবিতে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের নেতাকর্মীরা সোমবার সকালে নগরীতে হরতাল কর্মসূচিতে পালন করে। এসময় এক পর্যায়ে তারা নগরীর সদর রোডে অবস্থান নিলে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে মেট্রোপলিটন কোতোয়ালি মডেল থানা পুলিশ লাঠিচার্জ করে। তখন এসআই পবিত্র কুমারও ছিলেন। এ ঘটনায় ছাত্রজোটের নেতাকর্মীরা এসআই পবিত্র কুমার এবং এসআই নির্মলের শাস্তি দাবি করে পুলিশ কমিশনার বরাবর একটি অভিযোগ করে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে এসআই পবিত্র কুমারকে সাময়িক বরখাস্ত করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়। তাছাড়া অভিযোগপত্রটি তদন্ত করে অপর পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধেও আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

হরতাল কর্মসূচিতে নেতৃত্ব দেয়া সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সভাপতি ডা. মনিষা চক্রবর্তী জানান, সকাল থেকে বীর শ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়কে (সদর রোডে) হরতালের সমর্থনে তারা অবস্থান করছিলেন। কর্মসূচি চলাকালে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বিনা উসকানিতে কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাখায়াত হোসেনের নেতৃত্বে তাদের ওপর পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এতে ছাত্রইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এবি সিদ্দিকসহ ২০ নেতাকর্মী আহত হয়। এসময় বাসদের সদস্য জহুরা রেখাকে শারিরীকভাবে লাঞ্ছিতও করে পুলিশ।

আহতদের মধ্যে ৫জনকে উদ্ধার করে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারা হলেন, জগদ্বীশ স্বারসত বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আফসানা তৃষা, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের সংগঠক নিলিমা জাহান, মামুন হোসেন, ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদ এবি সিদ্দিক এবং অভি বিশ্বাস। বাকিরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ আছেন বলে জানিয়েছেন মনিষা চক্রবর্তী।