মেইন ম্যেনু

হরমোনের কারণেই কমতে চায় না ওজন

ডায়েট, হাঁটা, শরীর চর্চা অনেক কিছুই চেষ্টা করছেন কিন্তু কিছুতেই ঝরাতে পারছেন না মেদ? উল্টো না খেয়ে, না খেয়ে দুর্বল হয়ে পড়ছেন? নানা খাটা-খাটুনিতে একদিন একটু হালকা মনে হলে পরের দিন মনে হয় ওজন আরও বেড়ে গেছে? আসলে সমস্যাটা খাওয়া বা ব্যায়ামের জন্য নয়। এটা হরমোনের কারসাজি। জানেন কি ওজন কমানোর জন্য শরীরের কিছু হরমোনের সঠিক পরিমাণে কাজ করার প্রয়োজন? সেই হরমোনগুলোর সমস্যা হলে ওজন কমানো সত্যিই শক্ত কাজ। তখন না খেলেও বাড়তে থাকে শরীর। জেনে নিন এমনই ৬ গুরুত্বপূর্ণ হরমোন কী কী।

টক্সিক ইস্ট্রোজেন: শরীরে ইস্ট্রোজেনের মাত্রা বেশি হওয়ার কারণেই ওবেসিটির সমস্যায় ভোগেন অনেকে।

টেস্টোটেরনের ঘাটতি: এই হরমোন লিবিডো, হাড়ের ঘনত্ব, পেশীর গঠন নিয়ন্ত্রণ করে। এই হরমোনের ঘাটতি হলে এক্সারসাইজ করা সত্ত্বেও বাড়তে থাকে মেদ।

হাইপোথাইরয়ডিজম: শরীরে থাইরয়েড হরমোনের ঘাটতি হলে ক্লান্তি বাড়ে, ওজন বাড়ে, চুল পড়ে যায়, এমনকী বন্ধাত্যও দেখা দেয়।

অতিরিক্ত ইনসুলিন: রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে ইনসুলিন। এই হরমোনের সাম্য বজায় না থাকলে ওজন বাড়বেই।

সিরোটনিন হরমোন: আমাদের মুড, খিদে, ঘুম, হজম ক্ষমতা সব কিছু নিয়ন্ত্রণ করে সিরোটনিন হরমোন। এই সিরোটনিনের মাত্রা বেশি হলে অবসাদ বাড়ে, খিদে বাড়ে, ওজন বাড়ে।

কর্টিসল হরমোন: অতিরিক্ত স্ট্রেসের ফলে শরীরে কর্টিসল হরমোনের মাত্রা বাড়ে। ফলে দেখা দেয় হজমের সমস্যা। আর হজম ঠিকমতো না হলে মেদ জমে শরীরে।

পরামর্শ: যারা কোনভাবেই মুটিয়ে যাওয়া রোধ করতে পারছেন না তারা চিকিৎসকের পরামর্শে হরমোন পরীক্ষা করে সে অনুযায়ী চিকিৎসা গ্রহণ করা প্রয়োজন। হরমোনের সঠিক মাত্রা শরীরে কাজ করলে শধু মুটিয়ে যাওয়া সমস্যার সমাধানই নয়, পুরো শরীরবৃত্তীয় কর্মকাণ্ড সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত হবে। অর্থাৎ, স্থুলতা নিয়ন্ত্রনে আসবে, খাবার হজম হবে, ভালো ঘুম হবে, শরীর ঝরঝরে লাগবে, ত্বকে উজ্জ্বলতা ফিরে আসবে।