মেইন ম্যেনু

হাইব্রিড পিচ বানিয়ে বিশ্ব ক্রিকেটে সম্পূর্ণ দখলের পরিকল্পনায় অস্ট্রেলিয়া!

জল, স্থল, আকাশ। দুনিয়ার তিন ক্ষেত্রে রাজত্ব করলে তবে মেলে মহারাজার মুকুট। গ্রিক মহাকাব্যে মহারাজার সংজ্ঞায় এমনই বলা হয়ে থাকে। ক্রিকেট বিশ্বের অলিখিত নিয়মও অনেকটা তাই। পেস, স্পোর্টিং, স্পিন তিন ধরনের পিচে প্রশ্নাতিত সাফল্য পেলে তবেই ক্রিকেট বিশ্বের সিংহাসনে বসার অধিকার মেলে। পেস আর স্পোর্টিং পিচে অস্ট্রেলিয়ার রাজত্ব প্রায় প্রশ্নাতীত। শুধু ঘূর্ণি পিচেই অসিদের দুর্বলতা সবার জানা। ক্রিকেট বিশ্বের প্রায় সব জায়গায় নিজেদের রাজত্ব প্রতিষ্ঠা করলেও উপমহাদেশে ঘূর্ণি পিচে হোঁচট খায় অসিরা। স্টিভ ওয়াহ হোক বা রিকি পন্টিং।

দুনিয়ার সর্বত্র হেলায় সিরিজ জয়ের রেকর্ড থাকলেও উপমহাদেশে তাদের হোঁচট খেতে হয়েছে। ব্যাপরটা অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেট বোর্ডের কর্তাদের বরাবরই চিন্তায় রেখেছে। অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে কিছুতেই উপমহাদেশের মত ঘূর্ণি পিচ তৈরি সম্ভব নয়। ক্রিকেটাররাও অভ্যস্ত নন এই ধরনের পিচে খেলে। ফলে ভারত, শ্রীলঙ্কায় এলে অসি ব্যাটসম্যানরা অসুবিধায় পড়েছেন, সিরিজ খুইয়ে ঘরে ফিরেছেন। তাহলে উপায়?

উপায়টা রপ্ত করে ফেলেছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। ব্রিসবেনে দেশের প্রধান ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে তৈরি হয়েছে হাইব্রিড পিচ। যে পিচে স্পিন, টার্ন ও বাউন্স তিনই রয়েছে। বছরের বছর সেই পিচে প্র্যাকটিস করছেন অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যানরা। ফলে ভারতে বা উপমহাদেশে খেলতে এলে পিচ আর সেভাবে অচেনা থাকছে না। ব্যাপারটা এতদিন সেভাবে জানাজানি না হলেও ফাঁস করলেন অস্ট্রেলিয়ার এ দলের হয়ে ভারতে খেলতে আসা ব্যাটসম্যান কালাম কালাম ফার্গুসন। ক দিন আগেই ভারতীয় এ দলকে একেবারে বিপর্যস্ত করে টেস্ট সিরিজ জেতে অস্ট্রেলিয়া এ দল। সিরিজে খেলেছিলেন বিরাট কোহলিও। অথচ হেলায় চেতেশ্বর পূজারা-নমন ওঝাদের হারিয়ে সিরিজ জেতে অসি এ দল। তখন থেকেই শুরু হয়েছিল নানা জল্পনা। কী করে ঘূর্ণি পিচে ভারতকে হারাতে পারছে অসিরা? জবাবটা দিয়ে দিলেন ফার্গুসনই। হাইব্রিড পিচই এখন অসিদের বিশ্ব ক্রিকেটে সম্পূর্ণ রাজত্বের পথে স্বপ্ন দেখাচ্ছে। জিনিউজ