মেইন ম্যেনু

হাজারের বেশি নিহতের কথা স্বীকার সৌদি সরকারের

এবারের হজে প্রায় এক হাজার একশ’ জন হাজী নিহত হওয়ার কথা স্বীকার করেছে সৌদি আরব। নিহতদের পরিচয় শনাক্ত করতে তারা এক হাজারের বেশি ছবিও বিভিন্ন দেশের দূতাবাসে পাঠিয়েছে। তবে শুধু মিনায় পদদলনে নয়, এবারের হজের বিভিন্ন সময়ে সহস্রাধিক নিহত হয়েছেন বলে দাবি করেছে সৌদি সরকার।

এদিকে মিনায় শয়তানকে লক্ষ্য করে পাথর ছুড়তে গিয়ে পদদলতি হয়ে এক হাজারের বেশি হাজী মারা গেছেন বলে বিভিন্ন দেশ থেকে দাবি করা হচ্ছে।

পাকিস্তান ও ভারতের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, এক দিন আগে সৌদি কর্তৃপক্ষ তাদের দূতাবাসে মিনায় নিহত ১ হাজার ৯০ জন হাজীর ছবি পাঠিয়েছে।

সৌদি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মেজর জেনারেল মনসুর আল-তুর্কি জানান, এবারের হজে দুর্ঘটনা ছাড়াও স্বাভাবিকভাবে মৃত হাজীদের ছবিও সেখানে আছে। এ ছাড়া গত ১১ সেপ্টেম্বর পবিত্র মক্কা নগরীর হারাম শরিফে ক্রেন ভেঙে ১১১ জন নিহতের ছবিও ওই তালিকায় যোগ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে ২৪ সেপ্টেম্বর মিনায় পদদলনে ৭৬৯ জন নিহত ও ৯৩৪ জন আহত হয়েছেন বলে দাবি করে আসছে সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। ২৫ বছরের মধ্যে এটাই হজে সবচেয়ে ভয়াবহ দুর্ঘটনা।

অন্যদিকে সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটের বরাত দিয়ে আরবি টিভি চ্যানেল আল-আলম জানিয়েছে, মিনায় পদদলনে নিহতের সংখ্যা চার হাজার ছাড়িয়ে গেছে। রেডিও তেহরান এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে। আল-আলমের বরাত দিয়ে রেডিও তেহরান জানিয়েছে— সৌদি উপ-স্বাস্থ্যমন্ত্রী হামাদ বিন মোহাম্মাদ আল-দুয়েলা বলেছেন, প্রাপ্ত ছবির ভিত্তিতে দেখা যাচ্ছে নিহত হাজীর সংখ্যা ৪ হাজার ১৭৩ জন। তবে সৌদি আরবের অন্য কোনো কর্মকর্তা এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে মন্তব্য করেননি বলে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

Saudi-Arabia

এদিকে মিনার ঘটনায় দেরিতে তথ্য জানানোর জন্য সৌদি কর্তৃপক্ষের সমালোচনা করেছে বিশ্বের সবচেয়ে মুসলিম জনবহুল দেশ ইন্দোনেশিয়া। দেশটি জানিয়েছে, মিনা দুর্ঘটনার চার দিন পর সোমবার রাতে তাদের দূতাবাসের কর্মকর্তারা হতাহতদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা পেয়েছেন।

মিনা দুর্ঘটনায় সৌদি সরকারের সমালোচনা করেছে ইরানও। ওই দুর্ঘটনায় ২৩৯ জন ইরানী নাগরিক নিহত ও ২৪১ জন আহত হয়েছেন।