মেইন ম্যেনু

হাজীগঞ্জ পৌর মহাশশ্মানের লক্ষ্মীর দশরা অনুষ্ঠিত

সুজন দাস : হাজীগঞ্জে পৌর মহাশশ্মানে প্রতিবছরে ন্যয় এবার ও লক্ষ্মী পূজা উপলক্ষ্যে হাজীগঞ্জ পৌর মহাশ শ্মন ও সৎকার কমিটির উদ্দ্যেগে একটি লক্ষ্মীর দশরা অনুষ্টিত হয়। হিন্দু ধর্মে লম্বদের মতে দশরা হচ্ছে যেখানে একই সঙ্গে একাধিক প্রতিমার একত্র করা হয়। এবং সেখানে প্রতিমাগুলোর আরাধনার জন্য যে সকাল আচার অনুষ্টান করা হয় তাই দশরা। এবার দশরা উপলক্ষে হাজীগঞ্জ পৌর মহাশশ্মনে গত রবিবার গভীর রাত পর্যন্ত অনন্দ উৎসবে মেতে উঠেছিলে হাজীগঞ্জ পৌর মহাশশ্মনের স্থান। এই বছর লক্ষ্মীর দশরা সন্ধ্যার পর থেকে হাজীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে দলে দলে হিন্দু ধর্মের লোকের রাত বাড়ার সাথে সাথে ভীড় জমাতে তাকে। বিভিন্ন প্রকারের বাদ্য যন্ত্র নিয়ে বিভিন্ন নাচ গানের মাধ্যেমে অনুষ্ঠানকে সাজ সজিত করা হয়। বিভিন্ন স্থানে মন্দির থেকে তাদের প্রতিমার সাথে ঢাক নিয়ে আসার সময় বাদ্যের তালে তালে মুখরী করে তোলে চার পাশ। এবার হাজীগঞ্জ পৌর মহাশশ্মানে ৫টি প্রতিমা দিয়ে লক্ষ্মীর দশরা অনুষ্টিত হয়। প্রতিমা গুলোর মধ্যে প্রতিযোগিতা দেওয়া হয় এতে প্রথমা স্থান অধিকার করেন নাটেহরা হরিদাস বেপারী বাড়ীর তরুন সংঘ, দ্বিতীয় স্থান রাধান গোবিন্দ মন্দির উত্তর নাটেহরা রমনী সিদ্ধার বাড়ি, ৩য় স্থান শ্রী শ্রী লক্ষ্মী নারায়ন পূজারী সংঘ বৈচাতলী, ৪র্থ স্থান নওয়াদা বড় বাড়ি পূজারী বৃন্দ, এবং ৫ম স্থান শ্রী শ্রী জয় গীতা সংঘ মকিমাবাদ সাহা বাড়ি। এই ছাড়া একই অনুষ্ঠানে হাজীগঞ্জ পৌর মহাশশ্মানে গত কিছুদিন আগো ত্রিশূল সংঘের উদ্দ্যেগে শারদ ড্র ঘোষনা করা হয়। প্রথম পুরস্কার এল ই ডি কালার টিভি নাম্বার টি হলো ৫৫২, ২য় স্মার্ট ফোন – ১৭৯০, ৩য় পুরস্কার – মোবাইল সেট- ২৬১৮, ৪র্থ পুরস্কার রাইচ কুকার- ১৩১৬, ৫ম পুরস্কার পানির ফিল্ডার – ১৭৬৬।সহ অরো ৫০ টি পুরুস্কার দিওয়া হয়। যারা এখনও পুরুষ্কার পাননি তারা কমিটির কোষাধক্ষ যুগল কৃষ্ণ সরকারের সাথে এই নম্বারে ০১৮১৮৪০৭০৬৫ যোগাযোগ করতে অনুরোধ করা হয়েছে । উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন হাজীগঞ্জ পৌর মহাশশ্মানের কমিটি ও সৎকার কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সহ অনান্য সদস্যরা।