মেইন ম্যেনু

হাতির মৃত্যুর ঘটনায় তদন্ত চেয়ে লিগ্যাল নোটিশ

ভারতের আসাম থেকে আসা বন্য হাতি মারা যাওয়ার ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্ত করে দোষীদের আইনের আওতায় আনতে সরকারের প্রতি লিগ্যাল নোটিশ দেওয়া হয়েছে।

বুধবার সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইউনুছ আলী আকন্দ এ লিগ্যাল নোটিশ ডাকযোগে পাঠান।

নোটিশ প্রাপ্তির ২৪ ঘণ্টার মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ এবং হাতির মৃত্যু ও সংশ্লিষ্টদের ব্যর্থতার কারণ অনুসন্ধানে বিচার বিভাগীয় কমিটি করতে নোটিশে বলা হয়েছে।

মৎস সচিব, বন ও পরিবেশ সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় সচিব, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবং জামালপুরের জেলা প্রশাসককে লিগ্যাল নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এ সময়ের মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে ব্যর্থ হলে এ বিষয়ে নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট আবেদন করা হবে বলে নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে।

নোটিশে বলা হয়, গত ২৬ জুন বন্য হাতিটি ভারতের আসাম থেকে বন্যার পানিতে ভেসে কুড়িগ্রাম সীমান্ত হয়ে বিভিন্ন জেলা ঘুরে শেষে জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ি উপজেলার কামড়াবাদ ইউনিয়নের কয়বা গ্রামে গত ১৬ আগস্ট মারা যায়। মৃত্যুর আগে চেতনানাশক ওষুধ হাতিটির শরীরে পুশ করে অজ্ঞান করলে ১০ ঘণ্টা পরে তার জ্ঞান ফেরে।

চেতনানাশক ওষুধ বেশি পুশ করার কারণে হয়ত হাতিটি মারা গেছে। এ ছাড়া হাতিটি উদ্ধারে বন বিভাগ, পশু সম্পদ বিভাগ বা সংশ্লিষ্ট অন্যান্য কর্তৃপক্ষের দায়িত্বহীনতা বা অবহেলা থাকতে পারে। এ বিষয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়েছে যে, হাতিটিকে হত্যা করা হয়েছে।