মেইন ম্যেনু

হাসিনার পৌষ মাস, খালেদার সর্বনাশ !

১৯৯৬ সালে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আন্দোলন করে তাকে ক্ষমতাচ্যুত করেছিলেন শেখ হাসিনা। বিএনপি প্রধানকে বাধ্য করা হয়েছিল তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থা বহালের জন্য।

৯৬তে ক্ষমতা গ্রহনের মাত্র তিন মাসের মাথায় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে মধ্যবর্তী নির্বাচন দিতে বাধ্য হয়েছিল বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

এদিকে ৯৬ সালের ন্যায় ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের (দশম জাতীয় নির্বাচন) মাধ্যমে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অধিকাংশ আসনে জয়লাভ করে ক্ষমতায় রয়েছে আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ হাসিনা।

৫ জানুয়ারির নির্বাচনকে আটকাতে সর্বোচ্চ আন্দোলন সংগ্রাম করেছে বিএনপি। এমনকি সরকার পতনের জন্য একাধিকবার আন্দোলনের ডাক দিয়েও ব্যর্থ হয়েছে তারা। শুধু তাই নয়, সরকারের রোষানলে পড়ে বিভিন্ন হামলা মামলার শিকার হয়ে কুপোকাত তিন বার সরকার গঠন করা বিএনপি। বাংলাদেশের রাজনীতিতে বিরোধীদলের প্রতি সরকারের দমনপীড়ন নতুন কিছু নয়, বহুকাল ধরেই চলে আসছে। আর স্বাধীনতার পর থেকেই গণতন্ত্র যন্ত্রনায় কাতরাচ্ছে।

এদিকে সরকার সমর্থক একাধিক সংগঠন বেশ কয়েকবার খালেদার গুলশান কার্যালয় ঘেরাও কর্মসূচি পালন করেছে। যদিও পুলিশি বাঁধার কারণে খালেদার কার্যালয় ঘেরাও করতে পারে নি তারা। তবে খালেদার গুলশান কার্যালয়ের বিদ্যুৎ, ডিস, টেলিফোন ও ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়েছিল। একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে কার নির্দেশে এটা হয়েছিল তা আজও অন্ধকারে রয়েছে। এর আগেও খালেদা জিয়াকে রাজধানীর মইনুল রোডের বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছিল।

এদিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনেও দেখা গেছে নাটকীয়তা। খালেদার নির্বাচনী গাড়ী বহরে হামলার ঘটনাও ঘটেছে। নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগে এনে প্রতিবাদ না করতে পেরে, মাঝ পথ থেকে নির্বাচন থেকে সড়ে দাঁড়িয়েছিল বিএনপি।

সর্বশেষ পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের হাতে লজ্জাজনকভাবে হেরেছে বিএনপির প্রার্থীরা। আবার সামনে আসছে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। প্রথম ধাপে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ৭৩৯টি ইউপিতে মনোনয়ন জমা দেয়ার শেষ তারিখেই ২৫ ইউপিতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছে।

অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে সব বাঁধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে সরকার পরিচালনা করছেন আওয়ামী লীগ নেত্রী শেখ হাসিনা। অন্যদিকে, অনেক চেষ্টা ফিকির করেও রাজনৈতি মাঠে সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারছেন না বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। সব মিলিয়ে বলা যায়, শেখ হাসিনার পৌষ মাস, খালেদার সর্বনাশ। আওয়ামী লীগের উন্নতি হচ্ছে আর আর বিএনপি ধ্বংস হচ্ছে। সূত্র: বিডি২৪লাইভ।