মেইন ম্যেনু

হিমু হত্যায় বাবা-ছেলেসহ ৫ জনের মৃত্যুদণ্ড

চট্টগ্রামে হিংস্র কুকুর লেলিয়ে স্কুলছাত্র হিমাদ্রী হিমু হত্যার দায়ে বাবা-ছেলেসহ পাঁচজনকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

রোববার বিকেল সোয়া ৪টার দিকে রায় ঘোষণা করেন চট্টগ্রাম চতুর্থ অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক নুরুল ইসলাম।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অনুপম চক্রবর্তী। এর আগে চাঞ্চল্যকর এ মামলার রায় ঘোষণার দুই দফা তারিখ পেছানো হয়।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী ও শিল্পপতি শাহ সেলিম টিপু, তার ছেলে জুনায়েদ আহমেদ রিয়াদ এবং রিয়াদের তিন বন্ধু শাহাদাৎ হোসাইন সাজু, মাহাবুব আলী খান ড্যানি ও জাহিদুল ইসলাম শাওন।

এদের মধ্যে শাহ সেলিম টিপু, শাহাদাৎ হোসাইন সাজু ও মাহাবুব আলী খান ড্যানি বর্তমানে কারাগারে আছেন। মামলার শুরু থেকেই পলাতক রয়েছে জুনায়েদ আহমেদ রিয়াদ ও জাহিদুল ইসলাম শাওন।

উল্লেখ্য, মাদক ব্যবসা ও মাদক সেবনের প্রতিবাদ করায় ২০১২ সালের ২৭ এপ্রিল চট্টগ্রাম মহনগরীর পাঁচলাইশ আবাসিক এলাকার ১ নম্বর সড়কের ফরহাদ ম্যানশনের বাড়ির চার তলায় হিমুকে কুকুর লেলিয়ে দিয়ে নিমর্মভাবে নির্যাতন করে বাড়ির ছাদ থেকে ফেলে দেয় তারই কয়েকজন বন্ধু। গুরুতর আহত অবস্থায় হিমুকে প্রথমে চট্টগ্রাম ও পরে ঢাকার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২৬ দিন থাকার পর ওই বছরের ২৩ মে মারা যায় হিমু।

হিমু পাঁচলাইশ আবাসিক এলাকার ১ নম্বর সড়কের ইংরেজি মাধ্যমের সামারফিল্ড স্কুল অ্যান্ড কলেজের ‘এ’ লেভেলের শিক্ষার্থী ছিল। পরে হিমুর মামা প্রকাশ দাশ অসিত বাদী হয়ে নগরীর পাঁচলাইশ থানায় পাঁচজনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।