মেইন ম্যেনু

‘হ্যাঁ আমি প্রত্যুষাকে মেরেছিলাম’

টেলিভিশন অভিনেত্রী প্রত্যুষা ব্যানার্জির আত্মহত্যাকে ঘিরে বিতর্ক ক্রমশ বাড়ছে। প্রত্যুষার আত্মহত্যার কারণ হিসেবে তার প্রেমিক রাহুল রাজ সিংয়ের পর যার নাম সবার আগে উঠে আসছে তিনি হলেন রাহুলের প্রাক্তন প্রেমিকা সালোনি শর্মা।

এতদিন প্রত্যুষার আত্মহত্যার বিষয়ে কোনও মন্তব্য করেননি তিনি। এবার তিনি মুখ খুলেছেন। সবার কাছে এতদিন তিনি ‘খলনায়িকা’ হয়ে ছিলেন। এবার তিনি এমন কিছু তথ্য দিলেন যা থেকে মোড় ঘুরে গেল প্রত্যুষার আত্মহত্যা ঘটনা তদন্তে।

তদন্ত চলাকালীন জানা গিয়েছিল, প্রত্যুষার ফ্ল্যাটে গিয়ে তাকে মেরেছিলেন সালোনি। এ প্রসঙ্গে তাকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ আমি প্রত্যুষাকে মেরেছিলাম। কিন্তু প্রথমে ওরা আমাকে মেরেছিল। আমি ওদের ফ্ল্যাটে রাহুলের কাছ থেকে আমার টাকা চাইতে গিয়েছিলাম। তখন ওরা আমাকে লাথি মেরে ফ্ল্যাট থেকে বের করে দিতে যায়। তখনই আমি নিজেকে বাঁচাতে মেরেছিলাম প্রত্যুষাকে। আমাকে শারীরিক নির্যাতন করার জন্য আমি ওদের নামে পুলিসের কাছে এফআইআরও করেছিলাম। পরের দিন রাহুল এসে আমার কাছে ক্ষমা চায়। তখন আমি কেস তুলে নিই।’

প্রত্যুষা ব্যানার্জির সঙ্গে সম্পর্কের আগে সালোনি শর্মার সঙ্গে সম্পর্ক ছিল রাহুল রাজের। তারা খুব ভালো বন্ধুও ছিলেন। রাহুল আর সালোনি দুজনে মিলে একটি ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি খুলেছিলেন। সেই কোম্পানিতে মোটা টাকা ইনভেস্ট করেছিলেন সালোনি। সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার পর রাহুলের থেকে সেই টাকা ফেরত চান তিনি।

কিন্তু রাহুল টাকা ফেরত দিচ্ছিলেন না। সালোনি বলেন, ‘আমি চাই না কারও মৃত্যুকে কেন্দ্র করে নিজে লাইমলাইটে আসতে। আমি এসব কথা বলতেও চাইনি। কিন্তু প্রত্যুষার আত্মহত্যার কারণ হিসেবে শুরু থেকে আমাকে দায়ী করা হচ্ছে। আমি আর প্রত্যুষা বন্ধু ছিলাম। আমি ওদের মাঝে আসিনি। ও আমাদের মাঝে এসেছিল। রাহুলের সঙ্গে প্রত্যুষার তো ১০ মাস হল সম্পর্ক হয়েছিল। আমার সঙ্গে ওর ৫ বছরের সম্পর্ক ছিল। রাহুলের জীবনে প্রত্যুষা এসেছে জানতে পেরেই আমি আমার হোয়াটস অ্যাপ থেকে প্রত্যুষার নাম মুছে দিয়েছিলাম। প্রত্যুষা জানতোই না যে রাহুল বিবাহিত। আমিও যদি আগে জানতাম, তাহলে কখনওই ওর সঙ্গে সম্পর্কে জড়াতাম না।’

ঘটনাচক্রে যে পুলিসের কাছে সালোনি, রাহুল-প্রত্যুষার নামে অভিযোগ জানিয়েছিলেন, তিনিই এখন প্রত্যুষার আত্মহত্যার কেসটি দেখছেন। অভিনেত্রী-মডেল সালোনি শর্মার সঙ্গে ৫ বছরের সম্পর্ক ছিল রাহুলের। হঠাৎ তিনি জানতে পারেন যে, রাহুল প্রত্যুষা বিয়ে করার পরিকল্পনা করছেন। তখনই তিনি তার বাবা মাকে নিয়ে প্রত্যুষার ফ্ল্যাটে যান। সেখানে গিয়ে দেখেন প্রত্যুষার বাবা মা-ও রয়েছেন। সালোনির বাবা-মা প্রত্যুষার বাবা-মা-কে তাদের মেয়ের সঙ্গে কী কী হয়েছে সব খুলে বলেন।

সালোনি এই প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, তিনি রাহুলের সঙ্গে সম্পর্ক ঠিক করতে নয়, তার টাকা ফেরত নিতে ফ্ল্যাটে গিয়েছিলেন। কারণ, লক্ষাধিক ওই টাকা সালোনির রোজগারের এবং তার বাবার রোজগারের।

তার মতে, প্রত্যুষার আত্মহত্যাকে কেন্দ্র করে তাকে খলনায়িকা বানিয়ে দেওয়া হয়েছে। আসলে তার সঙ্গেও যে ঠিক কী কী হয়েছে, তা কেউ জানেন না। সূত্র: জি-নিউজ